ইলিশের সরবরাহ থাকলেও দাম সেভাবে কমেনি

0
60
বাজারে ফিরেছে ইলিশ। রাজধানীর বাজারগুলোতে এখন ইলিশে সয়লাব। দামেও তুলনামূলক সস্তা। উল্লেখ্য, মা ইলিশ রক্ষায় গত ১ থেকে ২২ অক্টোবর পর্যন্ত ইলিশ মাছ ধরা, মজুত ও বিক্রি নিষিদ্ধ করে সরকার। এখন নিষেধাজ্ঞা শেষ হওয়ায় জেলেরা মাছ ধরতে নদীতে নেমেছেন। প্রচুর ইলিশ ধরা পড়ছে। এরমধ্যে ডিমওয়ালা ইলিশও রয়েছে।
সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, সরকার যদি নিষেধাজ্ঞার সময় আরও কয়েকদিন বাড়িয়ে দিত তাহলে মা ইলিশগুলো ডিম ছাড়তে পারত। এতে ইলিশের উৎপাদন বাড়ত। শুক্রবার রাজধানীর কারওয়ানবাজার ও নিউমার্কেটসহ কয়েকটি বাজার ঘুরে এসব তথ্য জানা যায়। এদিন বাজারে ৫০০ থেকে ৬০০ গ্রাম ওজনের ইলিশ বিক্রি হয় ৩৫০ থেকে ৪০০ টাকায়, ৭৫০ গ্রাম ওজনের ইলিশ বিক্রি হয় ৬০০ থেকে ৬৫০ টাকায় ও ৯’শ গ্রাম থেকে ১ কেজি ওজনের ইলিশ মাছ ১ হাজার থেকে ১ হাজার ৩’শ টাকায়।
কাওরানবাজারের ইলিশ বিক্রেতা রকিব বলেন, বাজারে ইলিশ না থাকলে বাজার জমে না। এখন নিষেধাজ্ঞা শেষ হওয়ায় বাজারে আবার ইলিশ আসছে। দাম খুব বেশি না বলেও তিনি দাবি করেন। তবে এই বাজারের ক্রেতা আনিসুর রহমান বলেন, বাজারে ইলিশের অনেক সরবরাহ থাকলেও দাম সেভাবে কমেনি। দাম আরও কমা উচিত বলে তিনি মনে করেন। এদিকে গত এক সপ্তাহের ব্যবধানে বাজারে পেঁয়াজের ‘ঝাঁজ’ বেড়েছে। এছাড়া কাঁচামরিচের ‘ঝাঁল’ কিছুটা কমলেও তা এখনো বেশি। শুক্রবার খুচরা বাজারে প্রতি কেজি আমদানিকৃত পেঁয়াজ ৬০ থেকে ৬৫ টাকা ও দেশি পেঁয়াজ ৭০ থেকে ৭৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়। যা এক সপ্তাহ আগেও কেজিতে ১০ থেকে ১২ টাকা কমে বিক্রি হয়েছে। প্রতি কেজি কাঁচা মরিচ বিক্রি হয় ১২০ টাকায়।
এছাড়া সবজির দাম এখনও চড়া। ৫০ টাকা কেজির নীচে কোন সবজি নেই বললেই চলে। কাঁচা বাজার ঘুরে দেখা গেছে, প্রতি কেজি পটল ৫০ থেকে ৬০ টাকা, বেগুন ৬০ থেকে ৭০ টাকা, শিম ১২০ টাকা, টমেটো ১০০ থেকে ১২০ টাকা, আলু ২০ টাকা, কচুর লতি ৫৫ থেকে ৬০ টাকা, ঢেঁড়স ৬০ থেকে ৭০ টাকা, ঝিঙ্গা, করলা ও কাকরোল ৫৫ থেকে ৬০ টাকা, পেঁপে ৪০ থেকে ৪৫ টাকা, চাল কুমড়া ও লাউ প্রতিটি আকারভেদে ৫০ থেকে ৬০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া ফুলকপি ও বাঁধাকপি ৩০ থেকে ৩৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।
মাছের মধ্যে প্রতি কেজি রুই ও কাতলা ২৫০ থেকে ৪০০ টাকা, পাঙ্গাস ১৫০ থেকে ২৫০ টাকা, টেংরা ৫৫০ থেকে ৬০০ টাকা, সরপুঁটি ৩০০ থেকে ৪৫০ টাকা, তেলাপিয়া ১৪০ থেকে ১৮০ টাকা, সিলভার কার্প ১৮০ থেকে ২৫০ টাকা, চাষের কৈ ২০০ থেকে ৩৩০ টাকা, মাগুর ৬০০ থেকে ৭০০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।
মাংসের মধ্যে ব্রয়লার মুরগি ১৩০ থেকে ১৩৫ টাকা, লেয়ার ১৭০ থেকে ১৮০ টাকা, পাকিস্তানি লাল মুরগি ২৮০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া গরুর মাংস ৫০০ টাকা এবং খাসির মাংস ৭৫০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।
image_pdfimage_printPrint

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here