গাজীপুরে ওয়াশিং কারখানায় কর্মবিরতি ও বিক্ষোভ সমাবেশ

0
49
গাজীপুরে ওয়াশিং কারখানায় কর্মবিরতি ও বিক্ষোভ সমাবেশ

গাজীপুরের টঙ্গীতে একটি ওয়াশিং কারখানায় এক শ্রমিককে মারধরের ঘটনাকে কেন্দ্র করে আজ শনিবার সকাল থেকে কর্মবিরতি ও বিক্ষোভ সমাবেশ করেন শ্রমিকেরা। এ সময়ে উত্তেজিত শ্রমিকেরা কারখানায় ব্যাপক ভাঙচুর চালান। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ রাবার বুলেট ও কাঁদানে গ্যাসের শেল ছোড়ে। এ সময় শ্রমিক ও পুলিশের মধ্যে পাল্টাপাল্টি ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এতে অন্তত ২০ জন আহত হয়েছে।

কারখানার শ্রমিক ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, গাজীপুরের টঙ্গীর মিলগেইট এলাকায় হামিম গ্রুপের ক্রিয়েটিভ ওয়াশিং লিমিটেড নামের একটি ডাইং কারখানা রয়েছে। ওই কারখানায় কয়েক হাজার শ্রমিক কাজ করে। কারখানার ডাইং সেকশনের অপারেটর তৈয়ব আলী ওরফে আশরাফ (৩০) গত বৃহস্পতিবার একটি প্যান্ট ওয়াশ করার পর কৌশলে চুরি করে। পরে কারখানা থেকে বের হওয়ার সময় নিরাপত্তাকর্মীদের তল্লাশিতে তা ধরা পড়ে। চুরির অপরাধে তৈয়ব আলীকে নিরাপত্তাকর্মীরা কয়েক দফা মারধর করে জখম করে। আজ সকালে শ্রমিকেরা এর প্রতিবাদে কাজ বন্ধ করে বাইরে অবস্থান করে বিক্ষোভ করতে থাকে। একপর্যায়ে তারা কারখানায় ব্যাপক ভাঙচুর চালায়। খবর পেয়ে টঙ্গী থানা-পুলিশ, শিল্প পুলিশ শ্রমিকদের বুঝিয়ে নিয়ন্ত্রণ করার চেষ্টা করে। পুলিশকে দেখতে পেয়ে শ্রমিকেরা আরও উত্তেজিত তাদের লক্ষ্য করে ইটপাটকেল ছুড়তে থাকে। এ সময়ে শ্রমিক ও পুলিশের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ বেশ কয়েকটি রাবার বুলেট ও কাঁদানে গ্যাসের শেল ছোড়ে। পরে শ্রমিকেরা ছাত্রভঙ্গ হয়ে যায়। এতে শ্রমিক ও পুলিশসহ অন্তত ২০ জন আহত হয়েছে। তারা টঙ্গী সরকারি হাসপাতালসহ স্থানীয় ক্লিনিকে চিকিৎসা নিয়েছেন।

কারখানা কর্তৃপক্ষ ওই ঘটনার সঠিক বিচার করা হবে বলে জানিয়ে আজকের জন্য কারখানা বন্ধ ঘোষণা করে। পরে শ্রমিকেরা ধীরে ধীরে বাড়ি ফিরে যায়।

টঙ্গী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামাল হোসেন জানান, কারখানা মালিক একে আজাদ নিজে ওই শ্রমিকের দায়িত্ব নিয়েছেন। তাঁকে এখন ক্ষতিপূরণ বাবদ ২০ হাজার এবং চিকিৎসার খরচ দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন। এ ছাড়া যত দিন সুস্থ না হবে তত দিনের বেতনও দেওয়া হবে।

image_pdfimage_printPrint

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here