চোখের চিকিৎসার খরচ চাওয়ায় মাকে পিটিয়ে আহত

0
163

চোখের চিকিৎসার খরচ চাওয়ায় ৬৫ বছর বয়সী বৃদ্ধা মাকে পিটিয়ে আহত করেছে ছেলে মেহেদী শিকারী।

শুক্রবার বিকালে ঘটনাটি ঘটেছে ভোলার চরফ্যাশন উপজেলার আছলামপুর ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডে।

এ সময় ভাই মনির শিকারী মাকে রক্ষা করতে গেলে তাকেও মারধর করে এবং তার ঘরের আসবাবপত্র ভাংচুর করে মেহেদী ও তার শ্বশুরবাড়ির লোকজন।

এ ঘটনার পর গ্রামবাসীর তোপের মুখে পালিয়েছে মেহেদী ও তার শ্বশুরবাড়ির লোকজন।

আহতদের চরফ্যাশন হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে বলে হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে।

মা তাহেরা খাতুন উপস্থিত সাংবাদিকদের বলেন, তিন মাস আগে আমার স্বামী মারা গেছেন। তিন মাসের মাথায় আজ আমি ছেলের হাতে মাইর খাইলাম, এই বলেই কেঁদে ফেলেন তিনি।

পরে কান্না থামিয়ে ৬৫ বছর বয়সী এই বৃদ্ধা জানান, তিনি ছোট ছেলের সঙ্গেই থাকেন। তার চোখের সমস্যা, তাই চিকিৎসার খরচের জন্য পাঁচ ছেলের প্রত্যেকের কাছে সমহারে ৫ হাজার টাকা করে ধার্য করা হয়। ৪ ছেলে রতন শিকারী, দুলাল শিকারী (মালদ্বীপ প্রবাসী), মনির শিকারী ও জহির শিকারী চিকিৎসার ধার্যকৃত টাকা দিতে রাজি হলেও মেহেদী শিকারী টাকা দিতে অস্বীকৃতি জানায়।

সে মায়ের জমি বিক্রি করে চিকিৎসায় খরচ করতে বলে। এ নিয়ে কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে ছেলে মেহেদী তাকে কিলঘুষি শুরু করে। এ সময় ছেলে মনির শিকারী এবং তার মেয়ে রাবেয়া ঝগড়া থামাতে এসে তারাও হামলার শিকার হয়।

মনির শিকারীর স্ত্রী ছকিনা বিবি অভিযোগ করে বলেন, মেহেদী তার মাকে পেটানোর ঘটনায় আমার স্বামী মনির শিকারী প্রতিবাদ করলে মেহেদী তার শ্বশুরবাড়ির লোকজনদের নিয়ে আমার স্বামীকে মারধর করে আমাদের ঘরের আসবাবপত্র ভেঙে তছনছ করেছে।

গ্রামবাসীর তোপের মুখে মেহেদী পালিয়ে যায় এবং তার মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়ায় অভিযোগ প্রসঙ্গে তার বক্তব্য জানা যায়নি।

চরফ্যাশন থানার ওসি ম. এনামুল হক জানান, এ বিষয়ে কেউ অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

image_pdfimage_printPrint

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here