টানা বর্ষণের ফলে কারওয়ান বাজার তীব্র জলাবদ্ধতার সৃষ্টি

0
68

শনিবার দুপুর ১২ টা পর্যন্ত টানা বর্ষণের ফলে রাজধানীর অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ও ব্যস্ততম সড়কগুলোতে তীব্র জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে।

এর মধ্যে কারওয়ান বাজার এলাকায় কাজী নজরুল ইসলাম অ্যাভিনিউতে বৃষ্টির পানির ঢল দেখা গেছে।

বিশেষ করে কারওয়ান বাজার আন্ডারপাসের সামনে থেকে সার্ক ফোয়ারা হয়ে সোনারগাঁও হোটেল ছাড়িয়ে বিস্তৃর্ণ সড়কে কোমর পানি জমে অনেক নদীর মতো পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছিল।

অন্যদিকে একই সড়কের ফার্মগেট এলাকা, বিজয় স্মরণী, প্রধানমন্ত্রীর অফিসের সামনের এলাকাও বৃষ্টির পানিতে তলিয়ে যায়।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা থেকে শুরু হওয়া ঝিরি ঝিরি বৃষ্টি সময় বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে রুপ নেয় ভারী বর্ষণে।

শনিবার ১২টা পর্যন্ত দিনের প্রথম ৬ ঘণ্টায় রাজধানীতে ৪৯ মিলিলিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করেছে আবহাওয়া অফিস।

ফলে সকাল থেকেই বৃষ্টির পানি জমে কাজী নজরুল ইসলাম অ্যাভিনিউর বিভিন্ন এলাকা পানির নিচে তলিয়ে যায়।

এর ফলে রাজধানীর ‘লাইফ লাইন’ নামে পরিচিত সড়কটি জুড়ে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়। এতে বিপাকে পড়েন অফিসগামী মানুষ।

এছাড়া সড়কটির আশেপাশে অবস্থিত বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও কোচিং সেন্টারে যাওয়ার পথে ভোগান্তির মুখে পড়েন শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা। বাসাবাড়ি থেকে বের হতে পারেন এ এলাকার বাসা-বাড়ি ও ছাত্রাবাস-মেসের বাসিন্দারাও।

এদিকে রাজধানীর মতিঝিল, শান্তিনগর, মালিবাগ, নিউমার্কেট, রাসেল স্কয়ার, সংসদ ভবন এলাকা, গ্রীন রোড; মিরপুর-১, মিরপুর-১০, ১০, কাজিপাড়া, শেওড়াপাড়া ও কালশির সাংবাদিক আবাসিক এলাকাসহ অনেক জায়গার মূল সড়ক ডুবে গেছে হাঁটু পানির নিচে। কোনো কোনো স্থানে কোমর পানিও জমে গেছে।

মূল সড়কের বাইরে গলিপথগুলোর অবস্থা আরও ভয়াবহ। নিষ্কাশন ব্যবস্থা ভালো না থাকায় হাটু পানি জমে গেছে।

এদিকে আজ সকাল ৯টায় আবহাওয়া অধিদফতরের দেয়া পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, রংপুর, রাজশাহী, ময়মনসিংহ, ঢাকা, খুলনা, বরিশাল, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের অধিকাংশ জায়গায় অস্থায়ী দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারী ধরনের বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেই সঙ্গে দেশের কোথাও কোথাও মাঝারী ধরনের ভারী থেকে অতি ভারী বর্ষণ হতে পারে।

নিম্নচাপের কারণে সৃষ্ট বৃষ্টি শনিবার সারা দিন ও রাত পর্যন্ত অব্যাহত থাকতে পারে বলে বলা হয়েছে।

চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মংলা ও পায়রা সমুদ্র বন্দর সমূহকে ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে।

image_pdfimage_printPrint

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here