নাটোরে এক তরুণকে গলা কেটে হত্যা

0
74

নাটোর শহরের কান্দিভিটা মহল্লায় এক তরুণকে গলা কেটে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। গতকাল বুধবার রাতে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত তরুণের নাম অঙ্গন ইসলাম (২০)। তিনি নাটোর সদর উপজেলার পিপরুল ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) নারী সদস্য মমতাজ বেগম ও রফিকুল ইসলাম দম্পতির ছেলে। নাটোর শহরের কান্দিভিটা মহল্লায় নানা খাদেমুল ইসলামের বাড়িতে থাকতেন অঙ্গন ইসলাম। এলাকায় তিনি যুবলীগ কর্মী হিসেবে পরিচিত ছিলেন। শহরের একটি জুতার দোকানে কাজ করতেন।

নাটোর থানা ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, গতকাল রাত ১০টার দিকে শহরের সানু শু স্টোরে কাজ শেষে অঙ্গন নানার বাড়িতে ফিরছিলেন। এরপর থেকে তাঁর কোনো খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল না। পরে রাত সাড়ে ১১টার দিকে কান্দিভিটা মসজিদের পাশের একটি ফাঁকা জায়গায় রক্তাক্ত অবস্থায় তাঁকে দেখতে পান পথচারীরা। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠায়। তাঁর শরীরের ঘাড়, মুখমণ্ডল, কান ও চোয়ালেও গভীর জখম ছিল।

এ ঘটনায় গভীর রাতে দুজনকে আটক করা হয়েছে বলে দাবি করেছেন আটক ব্যক্তিদের পরিবারের সদস্যরা। আটক ব্যক্তিরা হলেন কান্দিভিটা মহল্লার মোজাহার আলী (৫০) ও সবুজ আলী (২০)।

আজ বৃহস্পতিবার সকালে নাটোর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সিকদার মশিউর রহমান আটকের বিষয়টি অস্বীকার করেন। এ ঘটনায় সকাল পর্যন্ত কোনো মামলা হয়নি বলে জানান তিনি। কেন এ হত্যাকাণ্ড ঘটেছে, তা এখনো জানা যায়নি বলে জানান তিনি।

নিহত ওই তরুণের প্রতিবেশীরা নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, একটি মেয়ের সঙ্গে সম্পর্কের জের ধরে নিহত তরুণের সঙ্গে স্থানীয় কিছু লোকের গোলমাল চলছিল। এর জের ধরে তাঁকে হত্যার হুমকি দেওয়া হয়েছিল। ওই তরুণকে যুবলীগের কর্মকাণ্ডে দেখা যেত বলেও জানান তাঁরা।

শহর যুবলীগের আহ্বায়ক সায়েম হোসেন জানান, ওই তরুণের কোনো পদ–পদবি ছিল না। তবে দলীয় কর্মকাণ্ডে মাঝেমধ্যে যোগ দিতেন।

নিহত তরুণের মা মমতাজ বেগম বলেন, ‘আমার ছেলেকে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়েছে। আমি এর বিচার চাই।’

image_pdfimage_printPrint

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here