নারীদের জন্য ‘পিংক স্যাম’ নামে রাইড শেয়ারিং সেবা চালু হলো

0
284

নারীই বাইকার, নারীই রাইডার। দেশে এই প্রথম নারীদের জন্য রাইড শেয়ারিং সেবা চালু হলো। যার নাম ‘পিংক স্যাম’। ঢাকার রাস্তায় ‘পাঠাও’, ‘উবার’, ‘আমার রাইড’, ‘বাহন’সহ ইত্যাদি এ্যাপসের মাধ্যমে মোটরসাইকেলে যাত্রীসেবা অর্থাৎ রাইড শেয়ারিং সেবা বেশ জনপ্রিয়তা লাভ করেছে। তবে এসব এ্যাপসের রাইড শেয়ারিং রাজধানীর পুরুষদের মধ্যেই সীমাবদ্ধ ছিল। সামাজিক ও পারিপার্শ্বিক দৃষ্টিভঙ্গি, নিরাপত্তা এবং ব্যক্তিগত অস্বস্তির কথা ভেবে অনেক সময় নারীরা এ সেবা নেয়ার ক্ষেত্রে নানা দ্বিধায় ভোগেন। আর ঢাকা শহরের পরিবহন সুবিধার চেয়ে অসুবিধাই বেশি। প্রতিদিনই গণপরিবহনে নানা ভোগান্তির শিকার হন শহরের নারীরা। নারীদের সুবিধা ও স্বাচ্ছন্দ্যের কথা মাথায় রেখে স্বতন্ত্র একটি রাইড শেয়ারিং সেবা নিয়ে এসেছে শেয়ার এ মোটরসাইকেল (এসএএম বা স্যাম) নামের একটি কোম্পানি।

‘পিংক স্যাম’ এ এ্যাপসের মাধ্যমে নারী যাত্রীরা সহজেই খুঁজে নিতে পারবেন একজন নারী লেডি বাইকারকে। আর সেই নারী বাইকার সেই যাত্রীকে পৌঁছে দেবেন তার গন্তব্যে। নারী স্কুটি বাইকার আরেকজন নারী রাইডারকে (সঙ্গীকে) সঙ্গে নিয়ে যেতে পারবেন এ্যাপসে এমন একটি ফিচার ‘পিংক স্যাম’ উন্মুক্ত করেছে শেয়ার এ মোটরসাইকেল (স্যাম)। ঢাকায় বিশেষভাবে মেয়েদের চলাফেরার জন্য এ এ্যাপ সহযোগিতা করবে বলে জানান স্যামের কর্তৃপক্ষ।

এ এ্যাপে সেবাদাতা ও গ্রহীতা উভয়কে ‘স্যাম বাইকার’ এ্যাপটিতে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। এ্যাপটির মাধ্যমে কোন নারী রাইডের জন্য অনুরোধ করলে অপর কোন নারী বাইকার তা গ্রহণ করে তাকে গন্তব্যে পৌঁছে দেবেন। গত ৫ নবেম্বর থেকে রাজধানীতে ‘পিংক স্যাম’ রেজিস্ট্রেশন শুরু হয়েছে। গত ৪ নবেম্বর ‘স্যাম’ রাইড শেয়ারিং নারীদের স্কুটিতে রাইড শেয়ারিংয়ের ঘোষণা দেয়। এরপর থেকেই নারী বাইকাররা যেমন রেজিস্ট্রেশনে ঝুঁকছেন পাশাপাশি নারী রাইডাররাও এ এ্যাপটিতে নিজেদের এ্যাকাউন্ট খোলার মাধ্যমে এ সেবা গ্রহণ করছেন। দেশে চালু হওয়া প্রথম রাইড শেয়ারিং এ্যাপ স্যামে আগে থেকে রিকোয়েস্ট পাঠিয়ে মোটরসাইকেল পাওয়া যেত। দ্রুত গন্তব্যে যাওয়ার এমন এ্যাপ ব্যবস্থা ঢাকায় জনপ্রিয়তা পাচ্ছিল। এর পথ ধরেই নতুন নতুন ফিচার যুক্ত করে স্যাম।

স্যামের ফাউন্ডার ইমতিয়াজ কাসেম জানান, বাংলাদেশ তথা বিশ্বে মোটরসাইকেলে রাইড শেয়ারিং এ্যাপ আমরাই চালু করি। ২০১৬ সালের মে মাস থেকে রাইড শেয়ারিং এ্যাপ ‘স্যাম’ যাত্রা শুরু করে। ঠিক তখনই নারী যাত্রীদের জন্য ‘পিংক স্যাম’ নিয়ে কাজ শুরুর চিন্তা করি। কিন্তু বিআরটিএ থেকে লাইসেন্স পাওয়ার ক্ষেত্রে বিভিন্ন জটিলতার কারণে আমরা বন্ধ রাখি ‘স্যাম’ এর কার্যক্রম। চলতি বছরের অক্টোবর থেকে আমরা ‘স্যাম’ এ্যাপটি পুনরায় চালু করেছি। অনেক ভাল রেসপন্সও পাচ্ছি। ‘স্যাম’ এ্যাপের মাধ্যমে অনেক নারী যাত্রীও সেবা গ্রহণ করছেন। তবে ‘স্যাম’র বাইকাররা হচ্ছেন পুরুষ। আর ‘পিংক স্যাম’র বাইকাররা হচ্ছেন নারী। এ এ্যাপের মাধ্যমে শুধু নারী যাত্রীরাই উপকৃত হবেন। কোন নারী বাইকার পুরুষ যাত্রীদের সঙ্গে নিতে পারবেন না। কিন্তু ‘স্যাম’ এ্যাপের মাধ্যমে পুরুষ ও নারী উভয় যাত্রীরা সেবা পাবেন।

গণপরিবহনে যাতায়াতকালে নারীরা যৌন হয়রানির শিকার হয়ে থাকেন। ‘পিংক স্যাম’ এ্যাপ নারীর যাতায়াত ব্যবস্থা আরও সহজ করে তুলবে বলে মনে করেন ইমতিয়াজ কাশেম। তিনি আরও বলেন, রাজধানীতে পুরুষের সঙ্গে প্রতিযোগিতা করতে গিয়ে নারীরা যখন বাসে উঠতে যান তখন অপ্রীতিকর পরিস্থিতির মুখে তাদের পড়তে হয়। ‘পিংক স্যাম’ তাদের সে কষ্ট একটু হলেও দূর করবে। আর দ্রুত যেতে হলে এটাই হবে সবচেয়ে কার্যকর।

কবে নাগাদ ‘পিংক স্যাম’র কার্যক্রম আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হবে এ প্রশ্নের উত্তরে ‘স্যাম’র ফাউন্ডার বলেন, আমরা আশা করছি ‘পিংক স্যাম’র মাধ্যমে নারী যাত্রীরা ডিসেম্বর থেকেই সেবা পাবেন। এখন রেজিস্ট্রেশন চলছে। এ এ্যাপটি ঘোষণার পর মাত্র দু’দিনেই এ এ্যাপে দুই হাজার নারী বাইকার রেজিস্ট্রেশন করেছেন। এদের মধ্যে যে সবাই বাইকার তা বললে ভুল হবে। অনেকে হয়ত না বুঝেই রেজিস্ট্রেশন করেছেন। তবে এর কার্যক্রম শুরুর আগে আমরা অবশ্যই প্রতিটি স্কুটির কাগজপত্র পরীক্ষা করে নেব। পাশাপাশি চালকদের জন্য একটি ট্রেনিংয়েরও ব্যবস্থা করবেন বলে জানান তিনি।

এ এ্যাপের রেজিস্ট্রেশনভুক্ত লেডি বাইকাররা সহজেই প্রতি মাসে ২০ হাজার টাকা উপার্জন করতে পারবেন বলে জানিয়েছেন ‘স্যাম’ কর্তৃপক্ষ। নারীরা স্কুটি দিয়ে রাইড শেয়ার করে মাসে এ টাকা আয় ও সঙ্গে বোনাস ও ইনসেনটিভ সুবিধা পাবেন। এ আকর্ষণ রেখে নারী বাইকার রেজিস্ট্রেশন চালাচ্ছে স্যাম এ্যাপ।

‘পিংক স্যাম’ এ্যাপটির সুবিধাভোগীরা হলেন নারী। যেসব নারী স্কুটি চালান তারা ‘স্যাম বাইকার’ এ্যাপে গিয়ে ‘পিংক স্যাম’ অপশনে গিয়ে রেজিট্রেশন করলে আরেকজন নারী যাত্রীর রিকোয়েস্ট পাবেন কোথাও নিয়ে যাওয়ার জন্য। যাত্রী হিসেবে নারীদের স্যাম রাইডার এ্যাপে রিকোয়েস্টের ক্ষেত্রে আরেকজন নারী বাইকার খুঁজে পাবেন। এক্ষেত্রে এ্যাপের মধ্যে থাকা ‘ওমেন বাইকার ওনলি’ অপশন সিলেক্ট করতে হবে। স্যাম এ্যাপে মোটরসাইকেলে যেতে যাত্রীদের প্রথম ৩ কিলোমিটারের ভাড়া ৬০ টাকা। প্রতি কিলোমিটার ১২ টাকা। প্রতি মিনিট ৫০ পয়সা। ভাড়া পরিশোধের ক্ষেত্রে আছে নগদ ও ই-ওয়ালেট সুবিধা।

Pink SAM-এ বাইকার হওয়ার জন্য গুগল প্লে স্টোর বা এ্যাপ স্টোর থেকে ‘SAM Biker’ এ্যাপ ডাউনলোড করে ইন্সটল করে নিতে হবে। এরপর ‘Don’t have an account?’ অপশনে গিয়ে পরবর্তী ধাপগুলো অনুসরণ করুন। প্রয়োজনে কলঃ ০১৭৮৬৩৩৩৩১১ বা ০১৭৮৬৩৩৩৩০০। এছাড়া Android App Download Link- ও IOS App Download Link।

বিস্তারিত জানতে- https://shareamotorcycle.com/

image_pdfimage_printPrint

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here