ফাইনালের মঞ্চে পিছিয়ে পড়ে ফিরে আসা সম্ভব হয়নি লাল-সবুজ জার্সিধারীদের।

0
71
ফাইনালের মঞ্চে পিছিয়ে পড়ে ফিরে আসা সম্ভব হয়নি লাল-সবুজ জার্সিধারীদের।

পুরো বাছাইপর্বে বেশ কয়েক ম্যাচে পিছিয়ে পড়েও জয় ছিনিয়ে এনেছে বাংলাদেশ। এই সুখস্মৃতি দর্শকরা ভোলে কী করে! তাই তো স্কোরবোর্ডে বাংলাদেশ ০-২ গোলে পিছয়ে থাকলেও হাল ছাড়তে চাননি দর্শক-খেলোয়াড়দের কেউই। তবে শেষ রক্ষা হলো না। ফাইনালের মঞ্চে পিছিয়ে পড়ে ফিরে আসা সম্ভব হয়নি লাল-সবুজ জার্সিধারীদের। বাংলাদেশের হকি প্রেমীদের আশার প্রদীপ দমকা বাতাসে নিভেই গেল! ২-০ গোলে হেরে এশিয়ান গেমস হকির বাছাইপর্বে রানার্সআপের তকমা নিয়ে সন্তুষ্ট থাকতে হলো জাতীয় হকি দলের।

২৮ মিনিটে আল ফাজারি রাশাদের গোলে এগিয়ে যায় স্বাগতিকেরা। তিন মিনিট পরেই ২-০ করেন রাজাব বশিম খাতার। জিমি-চয়ন-আশরাফুলরা ম্যাচে ফেরার সুযোগ পেলেও গোল মিসের ব্যর্থতায় তা আর হয়ে ওঠেনি।

থাইল্যান্ডের বিপক্ষে ৫-০ গোলের জয়ে বাছাইপর্ব মিশন শুরু করেছিল বাংলাদেশ। হংকংয়ের বিপক্ষে এক গোলে পিছিয়ে গিয়ে ৫-১ গোলে জয়। আর গ্রুপপর্বের শেষ ম্যাচে আফগানিস্তানকে দিয়েছিল ২৫ গোল। সেমিফাইনালে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে দুইবার পিছিয়ে গিয়েও শেষ পর্যন্ত ৩-২ গোলে জয়। আর আজ ফাইনালের মঞ্চে কোনো গোল না করতে পেরে হার।
সব মিলিয়ে ৩৮ গোল দিয়েও ৫ গোল খেয়ে বাছাইপর্ব শেষ করল বাংলাদেশ।

ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন হিসেবেই বাছাইপর্ব খেলতে গিয়েছিল বাংলাদেশ। আট দলে পাঁচের মধ্যে থাকতে পারলেই এশিয়ান গেমস নিশ্চিত। তা তো বাংলাদেশ সেমিতে উঠেই পূরণ করেছিল। কিন্তু বাংলাদেশের প্রত্যাশা ছিল শিরোপা ধরে রাখা। তা আর হলো কোথায়! নিজেদের মাঠে পেয়ে গতবারের বাছাইপর্বে ফাইনালে হারের বদলা নিয়েছে ওমান। ২০১৪ সালে ঢাকায় ওমানের বিপক্ষে ৬-১ গোলে জিতেছিল বাংলাদেশ।

image_pdfimage_printPrint

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here