ম্যাচ শেষে বাংলাদেশ দেখে ১০ উইকেটের হার

0
250

যথা পূর্বং তথা পরং। এবার ওয়ানডেতেও মলিন চেহারা দেখালো টাইগাররা। খোলনলচে বদলে গতকাল ওয়ানডেতে খেলতে নামে বাংলাদেশ দল। আর ম্যাচ শেষে বাংলাদেশ দেখে ১০ উইকেটের হার। দিনের শুরুতে ভক্ত-সমর্থকদের মুখে হাসি ফেরান মুশফিকুর রহীম। ব্যাট হাতে সেঞ্চুরি হাঁকান বাংলাদেশ টেস্ট দলের এই অধিনায়ক। তবে দিন শেষে পানিতে যায় মুশফিকের সেঞ্চুরি। বল হাতে ওয়ানডেতেও ভোগান্তি জারি টাইগারদের। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজে টাইগার বোলাররা পান সাকুল্যে ১৩ উইকেট। আর গতকাল একদিনের ম্যাচে ২৭৯ রানের টার্গেটে কোনো উইকেট না হারিয়েই জয় কুড়ায় স্বাগতিকরা। এতে তারা সময় নেয় ৪২.৫ ওভার। ম্যাচ শেষে ১৬৬ রানে অপরাজিত থাকেন কুইন্টন ডি কক। ১৪৪ বলের ইনিংসে ডি কক হাঁকান ২০টি চার ও ২টি ছক্কা। ৮৬ ম্যাচের ওয়ানডে ক্যারিয়ারে ডি ককের এটি ১৩তম সেঞ্চুরি। আর বল হাতে টাইগাররা প্রথম সুযোগ পায় তাও ইনিংসের ৩৭.১তম ওভারের ঘটনা। দলীয় ২৩৭ রানে প্রোটিয়াদের ভারতীয় বংশোদ্ভূত ওপেনার হাশিম আমলার ফিরতি ক্যাচ লুফে নিতে ব্যর্থ হন টাইগার পেসার তাসকিন আহমেদ। ওই ওভারেই সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন হাশিম আমলা। ৯৯ বলে ১০০ রান পূর্ণ করার পথে আমলা হাঁকান ৮টি বাউন্ডারি। ১৫৭ ম্যাচের ওয়ানডে ক্যারিয়ারে হাশিম আমলার এটি ২৬তম শতক। ম্যাচ শেষ ১১০ রানে অপরাজিত থাকেন আমলা। বাংলাদেশের বল হাতে অভিষিক্ত পেসার মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন ৫ ওভারের স্পেলে দেন ৪৬ রান। অপর পেসার তাসকিন আহমেদ ৮ ওভারের স্পেলে দেন ৬১ রান।
দক্ষিণ আফ্রিকার ওয়ানডেতে ওপেনিংয়ে কুইন্টন ডি কক ও হাশিম আমলা শতরানের জুটি গড়লেন দশমবার (৭৫ ইনিংসে)। এতে তারা ছাড়িয়ে গেলেন হার্শেল গিবস-গ্যারি কারস্টেন জুটির কীর্তিকে। ক্যারিয়ারে ৬৬ ইনিংসে ৯ বার শতরানের জুটি গড়েন গিবস-কারস্টেন।
গতকাল টস জিতে ব্যাটিং বেছে নেন বাংলাদেশ অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা। আর ইনিংস শেষে ওয়ানডেতে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে দলীয় সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড গড়ে বাংলাদেশ। কিম্বারলিতে ইনিংস শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ পৌঁছে ২৭৮/৭-এ। ইনিংস শেষে ১১০ রানে অপরাজিত থাকেন মুশফিকুর রহীম। সফরে এ নিয়ে তিন ম্যাচেই টস জিতলো বাংলাদেশ। এর সিরিজের দুই টেস্টে টস জিতে ফিল্ডিং বেছে নেন অধিনায়ক মুশফিকুর রহীম। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ওয়ানডেতে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ সংগ্রহটি ছিল ২৫১ রানের। ২০০৭ এর বিশ্বকাপে গায়ানা মাঠের ঘটনা ছিল ওটা। রোববার ১০৮ বলে সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন মুশফিকুর রহীম। ওয়ানডে ক্যারিয়ারে এটি তার পঞ্চম শতক। আর ওয়ানডেতে তিনি সেঞ্চুরি পেলেন দুই বছর পর। সর্বশেষ ২০১৫তে ঢাকায় জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সেঞ্চুরি পান তিনি। এর আগে তৃতীয় উইকেটে অর্ধশত রানের জুটি গড়েন মুশফিকুর রহীম ও মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ।
দক্ষিণ আফ্রিকার লেগস্পিনার ইমরান তাহিরের বিপক্ষে ব্যাট হাতে গতকাল ক্রিজে কিছুটা অস্বস্তিতে ছিলেন সাকিব। আর বাজে শটে নিজের উইকেট দেন তিনি তাহিরকেই। ব্যক্তিগত ২৯ রানে ইমরান তাহিরের বলে জায়গায় দাঁড়িয়ে শট খেলতে যান সাকিব। ব্যাটের কানাই লেগে প্রথম স্লিপে হাশিম আমলার হাতে ধরা পড়েন তিনি। এতে ২৬তম ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ দাঁড়ায় ১২৬/৩-এ। ইনিংসের ২২তম ওভারের প্রথম বলে দলীয় ১০০ রানের কোঠায় পৌঁছে বাংলাদেশ। এর আগে ক্রিজে মানিয়ে উইকেট খোয়ান দুই ওপেনার ইমরুল কায়েস ও লিটন কুমার দাস। ব্যক্তিগত ৩১ রানে প্রোটিয়া পেসার ডোয়াইন প্রিটোরিয়াসের ডেলিভারিতে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দেন ইমরুল। ততক্ষণে ইমরুল খেলে নেন ৪৩ বল। এতে তিনি হাঁকান চারটি বাউন্ডারি ও একটি ছক্কা। এ ওপেনিংয়ে ৪৩ রান জমা পড়ে বাংলাদেশের স্কোর বোর্ডে। তবে ২৯ বলের ইনিংসে ব্যক্তিগত ২১ রানে উইকেট খোয়ান বাংলাদেশের উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান লিটন দাস। তামিম ইকবালের জায়গায় দলে সুযোগ নিয়ে লিটন স্লিপে ক্যাচ তুলে দেন রাবাদার বলে।

image_pdfimage_printPrint

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here