লাচ্ছার খামিরে মেশানো হচ্ছে ক্ষতিকর কাপড়ের রং।

0
57
লাচ্ছার খামিরে মেশানো হচ্ছে ক্ষতিকর কাপড়ের রং।

কারখানার পরিবেশ অস্বাস্থ্যকর, ঘিঞ্জি, দুর্গন্ধময়। লাচ্ছার খামিরে মেশানো হচ্ছে পোশাক কারখানায় ব্যবহৃত মানবদেহের জন্য ক্ষতিকর কাপড়ের রং। বগুড়া শহরের বৃন্দাবনপাড়া এলাকায় আকবর লাচ্ছা সেমাই কারখানার চিত্র এটি।
বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ডস অ্যান্ড টেস্টিং ইনস্টিটিউশনের (বিএসটিআই) অনুমোদন ছাড়া গড়ে ওঠা ওই কারখানায় অভিযান চালিয়ে লাচ্ছা সেমাইয়ে কাপড়ের রং মেশানোর হাতেনাতে প্রমাণ পান ভ্রাম্যমাণ আদালত। আজ রোববার ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান চালিয়ে কারখানার মালিক আমিনুল ইসলামকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করে। কারখানা থেকে জব্দ করা হয়েছে দেড় কেজি কাপড়ের রং ও ২১০ কেজি লাচ্ছা সেমাই। পরে এসব সেমাই আগুনে পুড়িয়ে ধ্বংস করা হয়।

পবিত্র রমজান মাসে খাদ্যদ্রব্যে ভেজালবিরোধী অভিযানের অংশ হিসেবে বগুড়া জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ভ্রাম্যমাণ আদালতের এ অভিযান পরিচালনা করা হয়। এতে নেতৃত্ব দেন বগুড়ার নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোছা মমতাজ মহল।

ভ্রাম্যমাণ আদালত সূত্রে জানা গেছে, আদালতের কাছে তথ্য ছিল আকবর লাচ্ছা সেমাই কারখানাতে বিএসটিআইয়ের অনুমোদন ছাড়াই অস্বাস্থ্যকর, নোংরা ও দুর্গন্ধময় পরিবেশে লাচ্ছা সেমাই তৈরি হচ্ছে। লাচ্ছায় ব্যবহার করা হচ্ছিল মানুষের জীবনহানিকর কাপড়ের রং। এই তথ্যের ভিত্তিতে বিএসটিআইয়ের রাজশাহী অঞ্চলের মাঠ কর্মকর্তা দেবব্রত বিশ্বাসকে সঙ্গে নিয়ে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মমতাজ মহলের নেতৃত্বে ভ্রাম্যমাণ আদালত সেখানে অভিযান পরিচালনা করেন।

বিএসটিআইয়ের রাজশাহী অঞ্চলের মাঠ কর্মকর্তা দেবব্রত বিশ্বাস বলেন, আকবর লাচ্ছা কারখানার বিএসটিআই অনুমোদন ছিল না। লাচ্ছার খামিরে ব্যবহার করা হচ্ছিল কাপড়ের রং। তিনি বলেন, এসব রঙে মানবদেহের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর বিষ ‘নেফ্রোটক্সিক’ রয়েছে। এই রং মানবদেহের কিডনি বিকল করে দিয়ে মৃত্যু ডেকে আনতে পারে। এই রং খেলে ক্যানসারও হতে পারে।

image_pdfimage_printPrint

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here