শ্রীনগরে স্বেচ্ছাচারিতার মাসুল দিচ্ছে প্রায় বিশ হাজার মানুষ

0
94

শ্রীনগরে সরকারী প্রকল্প পাওয়ার আশায় ব্যক্তি উদ্যোগে প্রায় দেড় কিলোমিটার রাস্তার কাজে হাত দিয়ে দু’বছর ধরে তা ফেলে রাখা হয়েছে। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান এমকে প্রাইভেট লিমিটেডের কর্ণধার পিকে বাড়ৈয়ের ওই স্বেচ্ছাচারিতার মাসুল দিচ্ছে দশটি গ্রামের প্রায় বিশ হাজার মানুষ।

সম্প্রতি প্রকল্পের মাধ্যমে রাস্তটি নির্মাণের জন্য উপজেলা প্রকৌশলী অফিস থেকে পরিমাপ করতে গেলে পিকে বাড়ৈ তাতে বাধা দেন বলে অভিযোগ উঠেছে। তিনি প্রকৌশলীকে জানান, কাজটি তিনিই বাস্তবায়ন করবেন। তবে পিকে বাড়ৈ এ অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, দুই বছর আগে প্রকল্প পাওয়ার আশায় কাজে হাত দিলেও শেষ পর্যন্ত প্রকল্প না পাওয়ায় কাজটি অসম্পূর্ণ রয়েছে। প্রকল্প পেলে কাজটি শেষ করা হবে। অথচ দুই বছর আগে ২১ জনের নামোল্লেখ করে ফেসবুক স্ট্যাটাসে তিনি দাবি করেছিলেন, রাস্তাটি তাদের ব্যক্তি উদ্যোগে হচ্ছে।

সরজমিন উপজেলার বিবন্দী-কাজীপাড়া রাস্তায় গিয়ে দেখা যায়, রাস্তাটির বেহালদশা। ফলে দুই বছর ধরে চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছে কুকুটিয়া ইউনিয়নের বিবন্দী, বনগাঁও, পাঁচলদিয়া, রানা, সিন্দুরদী, দত্তগাঁও, মুসলিমপাড়া, জুরাসারসহ ১০টি গ্রামের প্রায় ২০ হাজার মানুষ। বিবন্দী-পাঁচলদিয়া-কাজীপাড়া নামের ওই রাস্তাটিতে ২০১৬ সালের মে মাসের দিকে নিজের স্বেচ্ছাচারিতা প্রতিষ্ঠা করার জন্য পিকে বাড়ৈ ১০ ফুট প্রস্থ ওই রাস্তাটিতে কাজে হাত দিয়ে তা তিন ফুট উঁচু ও মাত্র দুই ফুট প্রস্থ করে রেখে দেন। এতে ওই এলাকার একমাত্র রাস্তাটি চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়ে।

এ বিষয়ে উপজেলা প্রকৌশলী আব্দুল মান্নান জানান, আমরা সরজমিন রাস্তাটির প্রস্তাবনা তৈরির জন্য পরিমাপ করার সময় পিকে বাড়ৈ মোবাইল ফোনে জানান রাস্তাটির প্রস্তাবনা দেয়া আছে। নতুন করে প্রস্তাবনা তৈরির প্রয়োজন নেই।

image_pdfimage_printPrint

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here