সিলেট সিক্সার্সের বিচারক হিসেবে থাকবেন ওয়াকার ইউনুস

0
191
‘বাংলাদেশে আসতে বরাবরই ভালো লাগে’- শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে নেমেই বলেন কিংবদন্তি পেসার ওয়াকার ইউনুস। একই সাথে কথা বললেন বাংলাদেশ ক্রিকেট নিয়েও। যদিও, সাবেক এই পাকিস্তানি অধিনায়কের বাংলাদেশ আগমনের কারণটা সম্পূর্ণ ভিন্ন।
বাংলাদেশ প্রিময়ার লিগে (বিপিএল) এবার ‘লাগলে বাড়ি বাউন্ডারি’-স্লোগান নিয়ে সিলেট সিক্সার্স নামে এবার ফিরছে সিলেট ফ্র্যাঞ্চাইজি। সিলেট সিক্সার্সের সেরা ১০ বোলার ‘ফিউচার সিক্সার্স’ নামের একটি ট্যালেন্ট হান্ট ক্যাম্পেইনে কার্যক্রমে আজ বিচারক হিসেবে থাকবেন তিনি। সিলেট বিভাগজুড়ে হওয়া প্রতিভা বাছাইয়ের কাজ করেছে দলটি।
তাদের মধ্যে প্রাথমিকভাবে বাছাইকৃত বোলারদের মধ্য থেকে সেরা ১০ বোলার নির্বাচনের কাজ করবেন ওয়াকার। পরে বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করবেন তিনি। নির্বাচিত ১০ বোলার আসন্ন বিপিএলে সিলেট সিক্সার্সের সঙ্গে থাকা, খাওয়া ও অনুশীলনের সুযোগ পাবেন। পুরস্কার বিতরণী শেষে সিলেট সিক্সার্সের জার্সি উন্মোচন করবেন ওয়াকার।
কিন্তু, কথায় আছে না – ‘ঢেঁকি স্বর্গে গেলেও ধান ভানে’। সেকারণেই ওয়াকার কথা বললেন মুস্তাফিজুর রহমানকে নিয়ে। ইনজুরি নিয়ে দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজের মাঝপথেই ছিটকে যাওয়া বাঁ-হাতি পেসারের ওপর এখনো আস্থা রাখছেন ওয়াকার। দাবি করলেন মুস্তাফিজ দ্রুতই ফিরবেন তার চেনা রূপে, ‘মুস্তাফিজ বেশ ভালো মানের বোলার। কিছুটা খারাপ সময় যাচ্ছে তার। তবে সে দ্রুতই ভালোভাবে ফিরে আসবে বলে আমি মনে করছি।’
দেশের বাইরে বাংলাদেশকে আরো বেশি ম্যাচ খেলার পরামর্শ দিলেন তিনি। জানালেন, নিজেদের বড় দলে পরিণত করতে এর কোনো বিকল্প নেই, ‘বেশি বেশি দেশের বাইরে ম্যাচ খেলতে হবে। তাহলেই বাইরের কন্ডিশন আর উইকেটের সঙ্গে মানিয়ে নেয়া যায়। সেদিক থেকে বাংলাদেশের উচিত বাইরের মাটিতে আরো ম্যাচ খেলা।’
দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে চলমান সিরিজের বাজে পারফরম্যান্সের প্রসঙ্গও আসলো। ওয়াকার মনে করছেন, এত অল্প অভিজ্ঞতা নিয়ে দক্ষিণ আফ্রিকায় এমনটা হতেই পারে। তিনি বলেন, ‘দক্ষিণ আফ্রিকা সবসময়ই বোলারদের জন্য বেশ কঠিন কন্ডিশন। সেখানে মাত্র দুটি টেস্ট খেলেই কোনো বোলারের সেরা হওয়া সম্ভব নয়। সেখানে অনেক ম্যাচ খেলার দরকার পরে।’
ওয়াকার এই উদ্যোগের প্রশংসা করলেন। শুধু সিলেট ফ্র্যাঞ্চাইজি নয়, এই উদ্যোগটা বাংলাদেশ ক্রিকেটের জন্য খুব কার্যকর হচ্ছে বলে দাবি করলেন তিনি, ‘সিলেট নতুন দল। আশা করি, তারা ভালো করবে। আর তারা যে নতুন ফাস্ট বোলার খুঁজে বের করার উদ্যোগ নিয়েছে সেটা আসলেই প্রসংশনীয়। এতে বাংলাদেশ আরো ভালো ভালো বোলার পাবে বলেও আশা করছি।’
এবার বিপিএল দেখবে তার পঞ্চম আসর। বলা হয়, এই বিপিএল চালু হওয়ার পর থেকেই বাংলাদেশ সীমিত ওভারের ক্রিকেটে একটু একটু করে উন্নতি করছে। খোদ ওয়াকারও তেমনটাই মানছেন। তিনি বলেন, ‘বিপিএল অনেক ভালো করছে। প্রতি বছর এর আরো উন্নতি হচ্ছে। বিপিএল থেকে বাংলাদেশও বেশ উন্নতি করছে যা আসলেই চোখে পরার মত।’
বোঝাই যাচ্ছে, বাংলাদেশ ক্রিকেটের ব্যাপারে ভালোই খোঁজখবর রাখেন ওয়াকার। তাহলে, কখনো বাংলাদেশের পেস বোলিং কোচ হওয়ার প্রস্তাব পেলে কী করবেন?  এমন প্রশ্নে অবশ্য খুবই কূটনিতিক ওয়াকার। বললেন, ‘এখন তো এই প্রশ্নের উত্তর দেওয়া যাচ্ছে না। প্রস্তাব আসলে অবশ্যই ভেবে দেখবো।
image_pdfimage_printPrint

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here