সুখের দাম ১২ কোটি টাকা

0
38

সবাই সুখী হতে চায়। এ নিয়ে গান, কবিতা-সবই হয়েছে। কিন্তু ঠিক কী করলে সুখ পাওয়া যাবে, তার কোনো ধরাবাঁধা নিয়ম কখনো জানা যায়নি। এখন জানা গেছে, আপেক্ষিকতার সূত্রের আবিষ্কারক আলবার্ট আইনস্টাইন নিজেই সুখের সূত্র তৈরি করেছিলেন। ওই সূত্রে কী বলা হয়েছে, তা নিশ্চয়ই জানতে চাইবেন সবাই। আর যদি ওই সূত্র নিলামে তোলা হয়, তবে তো কথাই নেই। যাদের সামর্থ্য আছে তাঁরা ঝাঁপিয়ে পড়বেন সুখের সূত্র হাতের মুঠোয় নিতে।

গতকাল মঙ্গলবার ইসরায়েলের জেরুজালেমে আয়োজিত একটি নিলাম অনুষ্ঠানে ঠিক এমন হুড়োহুড়িই হয়েছে। এতে ওই সুখের সূত্র লেখা বিজ্ঞানী আইনস্টাইনের নোটটি বিক্রি হয়েছে ১৫ লাখ ৬০ হাজার ডলারে। বাংলাদেশি টাকায় এই অঙ্ক দাঁড়ায় ১২ কোটিরও বেশি।

এএফপির খবরে বলা হয়েছে, জার্মানিতে জন্মগ্রহণকারী বিশ্বখ্যাত বিজ্ঞানী আইনস্টাইন ১৯২১ সালে পদার্থবিজ্ঞানে নোবেল পুরস্কার লাভ করেন। ১৯২২ সালে জাপানে একবার বক্তৃতা দিতে গিয়ে সুখ সম্পর্কে এই নোট লিখেছিলেন আইনস্টাইন। টোকিওর এক বার্তাবাহককে তিনি এটি দিয়েছিলেন। এতে সংক্ষেপে সুখী জীবনযাপনের তত্ত্বটি (তাঁর মতে) লেখা ছিল।

আইনস্টাইন ১৯২২ সালে জাপানে বক্তৃতা দিতে গিয়েছিলেন। টোকিওর ইম্পিরিয়াল হোটেলে ছিলেন তিনি। ওই সময় এক জাপানি বার্তাবাহক তাঁর কাছে বার্তা নিয়ে আসেন। সাধারণত কেউ বার্তা নিয়ে এলে তাঁকে কিছু বকশিশ দিতে হয়। ধারণা করা হয়, আইনস্টাইন বার্তাবাহককে বকশিশ হিসেবে এসব নোট দিয়েছিলেন।

নিলামকারী প্রতিষ্ঠান উইনারস জানিয়েছে, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হয়েছিল আইনস্টাইনের লেখা সুখ বিষয়ক দুটি নোটের দাম ৫ ও ৮ হাজার ডলার উঠবে। কিন্তু নিলামে দাম উঠে যায় অনেক। সুখের সূত্র লেখা নোটটি বিক্রি হয়েছে ১৫ লাখ ৬০ হাজার ডলারে। আর দ্বিতীয় নোটটি বিক্রি হয়েছে ২ লাখ ৪০ হাজার ডলারে।

উইনারসের একটি সূত্র জানিয়েছে, নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ইউরোপীয় ক্রেতা সুখের সূত্র লেখা নোটগুলো কিনেছেন। ওই ক্রেতা বার্তা সংস্থা এএফপিকে বলেছেন, ‘আমি সত্যিই খুশি এই ভেবে যে এখনো পৃথিবীতে অনেক মানুষ আছে যারা বিজ্ঞান ও ইতিহাসে আগ্রহী এবং দ্রুত পরিবর্তনশীল বিশ্বের সঙ্গে তাল মেলাতে চান।’

আইনস্টাইনের নোটগুলো এত দিন ছিল জার্মানির হামবুর্গের এক ব্যক্তির কাছে। একটি নোটে লেখা ছিল, ‘নিত্য অশান্তিযুক্ত সফল জীবনের চেয়ে শান্ত ও পরিমিত জীবন অধিক আনন্দের।’ আরেকটি সাদা কাগজের ওপর তিনি লিখে দিয়েছিলেন, ‘ইচ্ছা থাকলে উপায় হয়।’

image_pdfimage_printPrint

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here