সমকামী যুবলীগ নেতার যৌনাচারের ভিডিও নিয়ে ইমামের পক্ষপাতিত্ব,মসজিদে উত্তেজনা

0
176
সমকামী যুবলীগ নেতার যৌনাচারের ভিডিও নিয়ে ইমামের পক্ষপাতিত্ব,মসজিদে উত্তেজনা

আবু সাঈদ সজল, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট: বাংলাদেশনিউজ২৪
রাজশাহী মহানগর যুবলীগের বহিস্কৃত যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক তৌহিদুল হক সুমনের বিকৃত যৌনাচারের পক্ষপাতিত্ব নিয়ে ইমামের বক্তব্য দেওয়ায় মসজিতে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। একারনে ওই ইমাম কে নামাজ পরাতে দেয়নি উত্তেজিত মুসল্লিরা। শুক্রবার ঐতিহ্যবাহী শিরোইল কলোনির জামে মসজিদে জুমার নামাজ পরাতে গিয়ে মুসল্লিদের বাধার মুখে পড়েন মসজিদের ইমাম মুফতি মওলানা মোহাম্মদ মাইনুল ইসলাম।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, পাপাচারী মহানগর যুবলীগের বহিস্কৃত নেতা তৌহিদুল হক সুমনের বিকৃত যৌন সম্পর্কে একজন ইমাম সাফাই গেয়েছেন এবং তিনি বলেছেন সুমনের জনপ্রীয়তা নিয়ে একটি মহল সুমনের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে। এছাড়াও বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় সাক্ষাৎকালে তিনি বলেন, সুমনকে আমি গত ৩৪ বছর থেকে চিনি তার বিরুদ্ধে যে সকল মিথ্যাচার করা হচ্ছে তা সত্য নহে।

ওই সময় ইমাম আরো বলেন, একটি বিকৃত ভিডিও ছবি ১৪ বছর ছেলেকে বলতকার করার অবাস্তব ফুটেজ নিয়ে ফেসবুকসহ বিভিন্ন অনলাইন ও পত্রপত্রিকাতে ফলাও ভাবে প্রচার করা হচ্ছে তা সম্পূর্ণ মিথ্যা এবং এডিটিং করা। এ ঘটনায় মুসল্লিরা ক্ষিপ্ত হয়ে ইমামের উপর চড়াও হন।

বিক্ষুদ্ধ মুসল্লিরা জানান, একজন ইমামের পেছেনে দাঁড়িয়ে এলাকার শত শত ধর্মপ্রান মুসল্লি নামাজ পড়েন তার নিকট ধর্ম বিষয়ক আলোচনা শুনতে চায় রাজনৈতিক বক্তব্য নয়। তাছাড়া একজন পাপাচারী নেতার পক্ষে বক্তব্য দিয়ে সমাজে বিভ্রান্ত ছড়ানো ঈমামের দায়িত্ব নয়। কিন্তু তিনি তা না করে আজ দুই প্লাটুন পুলিশ নিয়ে এসে নামাজ পরানোর চেষ্টা করেছেন। নিয়ম অনুযায়ী জুম্মার নামাজ শুরু হয় দুপুর দেড়টায়। কিন্তু হট্টগোল বেঁধে যাওয়ায় নামাজ হয় দুপুর ২টার দিকে।

পরে চন্দ্রিমা থানার ওসি মোঃ হুমায়ুন কবির ও সঙ্গীয় ফোর্স ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করেন।

প্রসঙ্গত, গত ১৫ এপ্রিল এক কিশোরের সঙ্গে রাজশাহী মহানগর যুবলীগের বহিস্কৃত যুগ্ম-সম্পাদক তৌহিদুল হক সুমনের বিকৃত যৌনচারের ভিডিও ফাঁস হয়। পরে একাধিক অনলাইন পোর্টাল, রাজশাহীর স্থানীয় পত্রিকা ও জাতীয় পত্রিকায় সংবাদটি প্রকাশের পর তোলপাড় শুরু হয়। পরে গত ২০ এপ্রিল রাজশাহী মহানগর যুবলীগ থেকে সুমনকে বহিস্কার করা হয়। সঙ্গে কারণ দর্শাতে ১৫ দিনের সময় বেঁধে দেয়া হয়। ১৫ দিন অতিবাহিত হলেও মহানগর যুবলীগের নিকট ও এলাকাবাসীর নিকট নির্দোষ প্রমান করতে পারেনি তৌহিদুল হক সুমন। ইতিমধ্যেই তার শিকারোক্তি মূলক অডিও রেকর্ড ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে রাসিক ১৯ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও শিরোইল কলোনী জামে মসজিদ কমিটির সহ-সভাপতি নুরুজ্জামান টিটু জানান, মহানগর যুবলীগের বহিস্কৃত যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক তৌহিদুল হক সুমনের বিকৃত যৌন সম্পর্কে বক্তব্য দেওয়ায় মসজিদের মুসল্লিরা ক্ষিপ্ত হয়ে এমন উদ্ভট পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছিল। তবে ওই ইমামকে বাদ দিয়ে হাফেজ হারুনুর রশিদকে দিয়ে জুম্মার নামাজ সম্পন্ন করায় পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়।

জানতে চাইলে চন্দ্রিমা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) হুমায়ুন কবির জানান, শিরোইল কলোনীর জামে মসজিদে উত্তেজনা খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ফোর্স নিয়ে উপস্থিত হয়েছিলাম। পরে পরিস্থিতিও স্বাভাবিক হয়। তবে কি কারনে উত্তেজনা তা আমার জানা নেই।

image_pdfimage_printPrint

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here