মোবাইল অপারেটরদের নিরীক্ষা শেষ করতে চায় বিটিআরসি

0
46

দেশের তিন প্রধান মোবাইল ফোন অপারেটরের নিরীক্ষা কার্যক্রম সম্পন্ন করতে তৎপরতা বাড়িয়েছে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি)। এর মধ্যে সবচেয়ে বড় অপারেটর গ্রামীণফোনের নিরীক্ষার কাজ শেষ পর্যায়ে রয়েছে। দ্বিতীয় বৃহৎ অপারেটর রবি আজিয়াটার নিরীক্ষার কাজ চলছে। আর সম্প্রতি বাংলালিংকের নিরীক্ষার কাজ শুরুর উদ্যোগ নিয়েছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা।

২০১১ সালে প্রথম মোবাইল ফোন অপারেটরদের নিরীক্ষা কার্যক্রম চালানোর উদ্যোগ নেয় বিটিআরসি। তখন গ্রামীণফোন ও বাংলালিংকের নিরীক্ষা চালাতে দুটি সনদধারী হিসাববিদ (সিএ) প্রতিষ্ঠানকে নিয়োগ দেওয়া হয়। এর মধ্যে গ্রামীণফোনের নিরীক্ষা কার্যক্রম আইনি জটিলতায় আটকে যায়। আর বাংলালিংকের নিরীক্ষা চালাতে অপারগতা জানায় নিয়োগপ্রাপ্ত সিএ ফার্ম। এরপর ২০১৫ সালের অক্টোবরে গ্রামীণফোনের নিরীক্ষার জন্য তোহা জামান অ্যান্ড কোম্পানি নামের একটি সিএ ফার্মকে নিয়োগ দেওয়া হয়।

সম্প্রতি বিটিআরসির কমিশন বৈঠকে অপারেটরদের নিরীক্ষার বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হয়। ওই বৈঠকেই বাংলালিংকের নিরীক্ষা শুরু করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। বৈঠকে গ্রামীণফোনের নিরীক্ষা কার্যক্রমের পূর্ণাঙ্গ প্রতিবেদন জমা দেওয়ার সময় ২০ আগস্ট ঠিক করা হয়। নিয়োগকৃত নিরীক্ষা প্রতিষ্ঠানকে সব ধরনের পরামর্শ ও সহযোগিতা প্রদানে একটি কমিটি গঠনের সিদ্ধান্তও হয় ওই বৈঠকে।

জানতে চাইলে বিটিআরসির সচিব সরওয়ার আলম বাংলাদেশনিউজ২৪-কে বলেন, টেলিযোগাযোগ আইনে মোবাইল ফোন অপারেটরদের নিরীক্ষা কার্যক্রম পরিচালনার আইনি বিধান রয়েছে। এর পরিপ্রেক্ষিতে নিরীক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে। ভবিষ্যতে এই নিরীক্ষা নিয়মিত করা হবে।

২০১১ সালের এপ্রিল থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সময়ে গ্রামীণফোনের প্রথম নিরীক্ষা কার্যক্রম চালায় ফজল অ্যান্ড কোম্পানি নামের একটি সিএ ফার্ম। এ নিরীক্ষায় গ্রামীণফোনের বিরুদ্ধে ৩ হাজার ৩৪ কোটি টাকার নিরীক্ষা আপত্তি ওঠে। যদিও এ নিরীক্ষা আপত্তি চ্যালেঞ্জ করে উচ্চ আদালতে রিট আবেদন করে গ্রামীণফোন। এর পরিপ্রেক্ষিতে নতুন করে নিরীক্ষা প্রতিষ্ঠান নিয়োগের মাধ্যমে নিরীক্ষা কার্যক্রম শুরুর উদ্যোগ নেওয়া হয়।

২০১১ সালে পরিচালিত নিরীক্ষার বিষয়টি নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত বর্তমানে নিয়োগপ্রাপ্ত নিরীক্ষা প্রতিষ্ঠান তোহা জামানের কার্যক্রম পরিচালনা বন্ধ রাখতে ২০১৫ সালের ডিসেম্বরে বিটিআরসিকে চিঠি দেয় গ্রামীণফোন। এর জবাবে বিটিআরসি জানায়, নতুন নিরীক্ষা কার্যক্রম পরিচালনায় কোনো বাধা নেই। তারপরও নিরীক্ষা শুরু করতে না পেরে বিটিআরসির কাছে সময় বাড়ানোর আবেদন করে তোহা জামান অ্যান্ড কোম্পানি। এর পরিপ্রেক্ষিতে তিন দফায় সময় বাড়িয়ে চলতি বছরের আগস্টের মধ্যে গ্রামীণফোনের নিরীক্ষা শেষ করে পূর্ণাঙ্গ প্রতিবেদন জমা দিতে নিরীক্ষা প্রতিষ্ঠানকে নির্দেশ দিয়েছে কমিশন।

রবির নিরীক্ষার জন্য সিএ ফার্ম মসিহ মুহিত হক অ্যান্ড কোম্পানির সঙ্গে গত বছরের মার্চে চুক্তি করে বিটিআরসি। আর বাংলালিংকের নিরীক্ষার জন্য সিএ ফার্ম নিয়োগের প্রক্রিয়া শুরু করা হয়েছে।

image_pdfimage_printPrint

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here