সেনাবাহিনী মোতায়েনের দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ মুসলিম লীগ

0
63

নির্বাচনের তিন মাস আগে সংসদ বিলুপ্ত করে ভোটের এক সপ্তাহ আগে বিচারিক ক্ষমতা দিয়ে সেনাবাহিনী মোতায়েনের দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ মুসলিম লীগ। সোমবার রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে ইসি’র সঙ্গে সংলাপে ২৪ দফা প্রস্তাব তুলে ধরে দলটি। পরে বিকালে ইসি’র সংলাপে একই দাবি জানিয়েছে খেলাফত আন্দোলন। প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নূরুল হুদার সভাপতিত্বে সংলাপে নির্বাচন কমিশনাররা ছাড়াও ইসি’র ভারপ্রাপ্ত সচিব উপস্থিত ছিলেন। মুসলিম লীগের ১৮ সদস্যবিশিষ্ট দলটির নেতৃত্ব দেন দলের মহাসচিব কাজী আবুল খায়ের। দলটির দাবির মধ্যে রয়েছে- ইসিতে নিবন্ধিত প্রত্যেকটি দলের একজন প্রতিনিধি নিয়ে নির্বাচনকালীন সরকার ব্যবস্থা প্রবর্তন, কাস্টিং ভোটের পরিমাণ ৫০ শতাংশের কম হলে পুনঃনির্বাচন, ইভিএম ব্যবহার না করা, প্রতিটি কেন্দ্রে সিসি ক্যামেরা বসানো, না ভোটের ব্যবস্থা না রাখা, জোটবদ্ধভাবে নির্বাচন করলেও দলের নিজ নিজ প্রতীকে নির্বাচন করা বাধ্যতামূলক করা, দলের সঙ্গে সংশ্লিষ্টদের নির্বাচনী দায়িত্ব না দেয়া, রিটার্নিং কর্মকর্তাদের দায়িত্ব জেলা প্রশাসকের পরিবর্তে অতিরিক্ত জেলা জজদের নিয়োগ দেয়া। পরে বিকালে অনুষ্ঠিত সংলাপে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে এবং বিচারিক ক্ষমতাসহ সেনা মোতায়েনের দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলন। দলের চেয়ারম্যান হাফেজ মাওলানা শাহ আতাউল্লাহ’র নেতৃত্বে ১৫ সদস্যের প্রতিনিধি দল সংলাপে অংশ নেয়। দলটির পক্ষ থেকে জাতীয় সংসদে সংরক্ষিত নারী আসন বিলুপ্ত করা, বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত প্রার্থীর নামে গেজেট প্রকাশ না করে পুনরায় নির্বাচনের ব্যবস্থা করা, নাস্তিক, দুর্নীতিবাজ, দেশদ্রোহী, কালো টাকার মালিক, ঋণখেলাপির সঙ্গে জড়িত পরিবারবর্গ, ইসলামবিদ্বেষীদের নির্বাচনে অযোগ্য ঘোষণা করা, দলের সকল পর্যায়ে ৩৩ শতাংশ নারী প্রতিনিধিত্ব রাখার বিধান বাতিল করা ও ভোটকেন্দ্রে সিসিটিভির ব্যবস্থা করার সুপারিশ করে দলটি। এছাড়া, মতবিনিময় সভায় নির্বাচন কমিশনকে নতজানু না হওয়া, নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর থেকে গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয়গুলো ইসির অধীন আনা, ইভিএম ব্যবহার না করা, নির্বাচন সংক্রান্ত সব আইন বাংলায় করা, প্রার্থীদের জামানত ১০ হাজার টাকার মধ্যে রাখা, নির্বাচনী ব্যয় ১০ লাখ টাকার মধ্যে আনা, সকল অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার ও লাইসেন্সকৃত সকল অস্ত্র জমা নেয়া, প্রবাসীদের ভোটাধিকারের ব্যবস্থা করার দাবি জানায় দলটি। একাদশ সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে অংশীজনদের সঙ্গে সংলাপ শুরু করে ইসি। ২৪শে আগস্ট থেকে দলগুলোর সঙ্গে মত বিনিময় শুরু হয়েছে। এর আগে ৩১শে জুলাই সুশীল সমাজের প্রতিনিধি, ১৬ ও ১৭ই আগস্ট গণমাধ্যম প্রতিনিধির সঙ্গে মত বিনিময় করেছে ইসি। অক্টোবরের মধ্যে সবার সঙ্গে সংলাপ শেষ করার কথা রয়েছে।

image_pdfimage_printPrint

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here