কৈশোরে গানের শিক্ষকতা শুরু করেছিলাম

0
62

জিনাত সানু স্বাগতা। অভিনেত্রী, মডেল, উপস্থাপক ও কণ্ঠশিল্পী। তার উপস্থাপনায় বাংলাভিশনে প্রচার হচ্ছে চলচ্চিত্র-বিষয়ক অনুষ্ঠান ‘সোনালি দিনের রূপালি গল্প’। এ অনুষ্ঠান ও অন্যান্য বিষয়ে কথা হলো তার সঙ্গে-

‘সোনালি দিনের রূপালি গল্প’ অনুষ্ঠানটি উপস্থাপনা করে কেমন সাড়া পাচ্ছেন?

ভালো সাড়া পাচ্ছি। চলচ্চিত্র-বিষয়ক অনুষ্ঠানের দর্শক সংখ্যা কম নয়। ‘সোনালি দিনের রূপালি গল্প’ অনুষ্ঠানটি উপস্থাপনা করতে গিয়ে তার প্রমাণ পেয়েছি।

দর্শকরা উপস্থাপক হিসেবে বেশি পছন্দ করছেন?

উপস্থাপনা ভালো লাগে- এটা অস্বীকার করব না। কিন্তু সত্যি এটাই, অভিনয়ের প্রতি আকর্ষণ বেশি। এ পর্যন্ত কত নাটক করেছি তার হিসাব নিজেও জানি না। গত কয়েক বছরে অসংখ্য নাটক, টেলিছবিতে অভিনয় করেছি। এত কাজ করতে গিয়ে এ পর্যায়ে মনে হয়েছে, শুধু শুধু কাজের সংখ্যা বাড়িয়ে লাভ কী? দর্শকের মনে রাখার মতো কোনো কাজ যদি নাই করতে পারি, তাহলে অহেতুক পরিশ্রম করার মানে হয় না। এমন ভাবনা থেকেই এখন বাছ-বিচার করে কাজ করি। ভালো কাজ প্রতিদিন হয় না, এ জন্য ঘরে বসে না থেকে উপস্থাপনা শুরু করেছিলাম। বিভিন্ন চ্যানেলে বেশ কিছু অনুষ্ঠান করেছি বলেই উপস্থাপনা মন্দ লাগছে না।

ঈদের নাটক বা টেলিছবিতে আপনাকে দেখা যাবে?

এখনও ঈদের কোনো কাজ করিনি। কারণ চিকুনগুনিয়ায় আক্রান্ত হওয়ায় বেশ কিছুদিন বিশ্রামে ছিলাম। এ ছাড়া বোন সভ্যতার বিয়ে আর সংসারের গুরুত্বপূর্ণ কাজের জন্য ঈদের বেশ কিছু নাটকের প্রস্তাব ফিরিয়ে দিয়েছি। এ জন্য ঈদের কোনো নাটক বা টেলিছবিতে দেখা যাবে কি-না তা বলতে পারছি না। অবশ্য কিছু নাটকে অভিনয়ে কথা চলছে, যদি সেগুলোয় অভিনয় করি, তাহলে আমাকে দেখা যাবে।

অভিনয়, উপস্থাপনার পাশাপাশি হঠাৎ গানের শিক্ষকতা নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়লেন?

আমি কিন্তু কৈশোরে গানের শিক্ষকতা শুরু করেছিলাম, যখন আমি ক্লাস সিক্সে পড়ি। বাবা ছেলে মেয়েদের গান শেখাতেন। যখন বেশি ব্যস্ত থাকতেন, তখন আমাকে দু-একজন ছাত্রছাত্রী গাইড করার দায়িত্ব দিতেন। এভাবেই শুরু। এরপর ২০০১ সালে একটি স্কুলেও গান শেখানো শুরু করি। এখন আফসানা মিমির একটি স্কুলে শিশুদের গান শেখাই। যা সবসময়ই ভালো লাগে।

image_pdfimage_printPrint

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here