বলিউডের নবাব সুপারস্টার সাইফ

0
42

বলিউডের নবাব সুপারস্টার সাইফ আলী খান রান্নাঘরে রীতিমতো হাতাখুন্তি নিয়ে রান্নাবান্না করেছেন। এমনকি আপনার আমার চেয়েও বেশি পেঁয়াজ কেটেছেন। ৬ অক্টোবর মুক্তি পাচ্ছে সাইফ আলী খান অভিনীত ছবি ‘শেফ’। এই ছবিতে তাঁকে দেখা যাবে পেশাদার শেফের ভূমিকায়। ছবির প্রচারণার সময় সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন পরিচালক রাজা কৃষ্ণা মেনন।

সাইফের সঙ্গে কাজ করার অভিজ্ঞতা কেমন, এ প্রসঙ্গে ‘এয়ারলিফট’ ছবির পরিচালক রাজা কৃষ্ণা মেনন বলেন, ‘দারুণ! আমরা আস্তে আস্তে ভালো বন্ধু হয়ে গেছি। এমনিতে সাইফ একদম মাটির মানুষ। আমার এই চরিত্রের জন্য প্রথম পছন্দ ছিল সাইফই। আমি মনে করি, “শেফ” ছবিতে ও অন্যতম সেরা কাজ করেছে। সাইফ নিজেও তাই মনে করে। এর আগে কোনো চরিত্রের জন্য ও এতটা সময় দেয়নি। আর সবচেয়ে বড় কথা, সাইফ পরিচালকের খুব বাধ্য। ও ভীষণ পড়াশোনা করে। তাই অনেক ইনপুটও দিয়েছে। আর এই ছবিতে সাইফ যে চরিত্রটি করেছে, সে-ও সাধারণ ঘরের। তার সঙ্গে খুব সহজভাবে মিলেমিশে গিয়েছিল সাইফ। পর্দায় এবং পর্দায় বাইরে ওদের রসায়ন একই রকম ছিল। উল্টো ছেলেটি সাইফকে শাসন করত। তাই সব মিলিয়ে দারুণ অভিজ্ঞতা।’

‘শেফ’ ছবিতে সাইফ আলী খাননবাব সাইফকে শেফ বানানো কতটা শক্ত কাজ ছিল? পরিচালক বলেন, ‘সাইফ প্রকৃত অর্থেই নবাব। শক্ত কাজ নিশ্চয় ছিল। আর তার জন্যই আমরা সাইফকে নিয়ে টানা দুই মাসের ওয়ার্কশপ করি। তখন ওর হাতে সময় ছিল। এই ওয়ার্কশপ নবাবকে শেফ বানাতে খুব সাহায্য করে। এখানে সাইফ শেখে পেশাদার শেফ কীভাবে রান্নাঘর সামলায়। রোজ তিন ঘণ্টা পেঁয়াজ কাটাতাম ওকে দিয়ে। সাইফ এক মাসে পাঁচ হাজার পেঁয়াজ কেটেছে। ও খুব পরিশ্রম করেছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘পতৌদির নবাব সাইফকে দিল্লির চাঁদনি চকে টেনে নামাতে এক মাস সময় লেগেছিল। একজন গরিব মানুষের যন্ত্রণা দেখাতে ওকে প্রচুর ভিডিও দেখিয়েছি। সত্যি বলতে সাইফের পক্ষে ক্ষুধার যন্ত্রণা অনুভব করা খুবই কষ্টকর। কারণ, ও জানেই না ক্ষুধার যন্ত্রণা কী। ওয়ার্কশপে ওকে আমি খুব সাধারণ ঘরের এক শেফের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দিই। ছেলেটি অনাথ। অনেক সংঘর্ষের পর ছেলেটি এখন এক প্রতিষ্ঠিত শেফ। আরও অনাথ ছেলেদের নিয়ে মুম্বাইয়ের বুকে বড় রেস্তোরাঁ খুলেছে। স্পেন থেকে ফিরেছে ছেলেটি।’

রাজা এ প্রসঙ্গে বলেন, ‘শেফ’ ছবিতে সাইফের একটা সংলাপ আছে, ‘অমৃতসরে যখন শুতাম. তখন আমার গায়ের ওপর দিয়ে ইঁদুর দৌড়াত।’ সাইফ কিছুতেই বিশ্বাস করতে চায় না যে গায়ের ওপর দিয়ে ইঁদুর যেতে পারে। এই ছোট ছোট অনুভূতিগুলো বিশ্বাস করাতে সময় লেগেছিল। আর সেসবের জন্যই ওয়ার্কশপ করা হয়।

শেফ সাইফের হাতের রান্না খেয়েছেন? পরিচালক বলেন, ‘গত সপ্তাহে সাইফ আমাকে আর কয়েকজন বন্ধুকে ওর বাড়িতে ডেকেছিল। পাস্তা বানিয়েছিল। পাস্তাটা খুব ভালোই বানায়। তবে ‘ডাল-চাওল’ কেমন বানায় জানি না। আর ওর হাতের ‘ডাল-চাওল’ খাওয়ার ঝুঁকিও নিতে চাই না।’

image_pdfimage_printPrint

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here