জাতীয় শোক দিবস পালিত | শোক ও শ্রদ্ধায় জাতির জনককে স্মরণ

0
9

কালো পতাকা উত্তোলন, কোরআন খতম, দোয়া মাহফিল, কাঙালি ভোজ আর আলোচনা সভার মাধ্যমে গতকাল মঙ্গলবার কক্সবাজার, নোয়াখালী, ফেনী, বান্দরবানসহ সারা দেশে বঙ্গবন্ধুর ৪২তম শাহাদতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালন করা হয়েছে। শোক আলোচনায় বক্তারা বলেন, বঙ্গবন্ধু পাকিস্তানিদের শোষণ ও পরাধীনতা থেকে মুক্ত করে একটি স্বাধীন দেশ এনে দিয়েছেন। নতুন প্রজন্মের মধ্যে বঙ্গবন্ধুর নীতি আদর্শ ছড়িয়ে দিতে হবে।
ঢাকার বাইরে প্রথম আলোর নিজস্ব প্রতিবেদক, আঞ্চলিক কার্যালয়, প্রতিনিধি ও সংবাদদাতাদের পাঠানো খবর।
কক্সবাজারে গতকাল সূর্যোদয়ের সঙ্গে সঙ্গে জাতীয় ও দলীয় পতাকা অর্ধনমিতকরণ ও কালো পতাকা উত্তোলনের মধ্য দিয়ে শোক দিবসের কর্মসূচি শুরু করে জেলা আওয়ামী লীগ। এরপর সকাল ৮টায় কালো ব্যাজ ধারণ ও দলীয় কার্যালয়ে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। সকাল সাড়ে ৮টায় বঙ্গবন্ধুসহ ১৫ আগস্টের সকল শহীদদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে খতমে কোরআন, মিলাদ ও দোয়া মাহফিল করা হয়। সকাল ৯টার দিকে জেলা প্রশাসকের কার্যালয় থেকে বের হয় সম্মিলিত শোকযাত্রা। জেলা প্রশাসন, আওয়ামী লীগসহ বিভিন্ন সংগঠন শোকযাত্রায় অংশ নেয়। বেলা ১১টায় কক্সবাজার প্রেসক্লাবে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবসের আলোচনা সভার আয়োজন করে কক্সবাজার সাংবাদিক ইউনিয়ন। জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কক্সবাজার ইউনিটের উদ্যোগে নিজস্ব কার্যালয়ে বেলা ১১টায় কাঙালি ভোজের আয়োজন করা হয়।
বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানায় চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন l প্রথম আলোলক্ষ্মীপুরে যথাযথ মর্যাদায় জাতীয় শোক দিবস পালন করা হয়েছে। সকাল সাড়ে ৯টার দিকে লক্ষ্মীপুর জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে সদর উপজেলা পরিষদের সামনে থেকে শোকযাত্রা বের হয়ে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সামনে গিয়ে শেষ হয়। পরে জেলা কালেক্টরেট ভবন প্রাঙ্গণে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। জেলা প্রশাসক হোমায়রা বেগমের সভাপতিত্বে সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে ছিলেন লক্ষ্মীপুর সদর আসনের সাংসদ এ কে এম শাহজাহান কামাল।
গতকাল সকালে জেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে শহরের উত্তর তেমুহনী এলাকা থেকে একটি শোকযাত্রা বের করা হয়।
নোয়াখালীতে গতকাল সকালে সূর্যোদয়ের সঙ্গে সঙ্গে সরকারি, বেসরকারি ও স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত রাখা হয়। সাড়ে ৯টায় জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন সাংসদ মোহাম্মদ একরামুল করিম চৌধুরী। দিবসটি উপলক্ষে নোয়াখালী জেলা প্রশাসন ও আওয়ামী লীগের উদ্যোগে মসজিদে মিলাদ মাহফিল, মন্দিরে বিশেষ প্রার্থনা, শিশুদের জন্য চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা, বেকার যুবকদের ঋণ বিতরণ, হাসপাতালে বিশেষ খাবার পরিবেশন করা হয়।
অপর দিকে দিবসটি উপলক্ষে নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে শোকযাত্রা, বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য প্রদান ও আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।
ফেনীতে শোক দিবস উপলক্ষে সাইকেল র‍্যালি l প্রথমরাঙামাটিতে জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা ও শোকযাত্রা হয়েছে। গতকাল সকাল ১০টায় শহরের শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক মো. মানজারুল মান্নান। এর আগে রাঙামাটি শহরের ভেদভেদী এলাকা থেকে শোকযাত্রা হয়।
এদিকে পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড ও রাঙামাটি জেলা পরিষদের উদ্যোগে পৃথক আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। শোক দিবস উপলক্ষে রাঙামাটি সরকারি মহিলা কলেজে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল হয়। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ইতিহাস বিভাগের সহকারী অধ্যাপক এম রাশেদুল হক। শোক দিবসের এ আয়োজনে প্রধান অতিথি ছিলেন কলেজের অধ্যক্ষ মো. এনামুল হক খোন্দকার।
বান্দরবানে শোক দিবস উপলক্ষে আওয়ামী লীগ, সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও সংগঠন বিভিন্ন কর্মসূচির আয়োজন করে। সকালে বান্দরবান প্রেসক্লাব-সংলগ্ন বঙ্গবন্ধু মুক্তমঞ্চে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণের মাধ্যমে দিবসের কর্মসূচি শুরু হয়। পার্বত্য চট্টগ্রামবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং প্রথমে পুষ্পমাল্য অর্পণ করেন। জেলা আওয়ামী লীগ গতকাল সকালে মিলাদ মাহফিল ও বিভিন্ন ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে প্রার্থনা শেষে ১০টায় জেলা শহরে শোকযাত্রা বের করে। দুপুরে বঙ্গবন্ধু মুক্তমঞ্চে কাঙালি ভোজের আয়োজন করা হয়। সন্ধ্যায় আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। এ ছাড়া জেলা প্রশাসন সকালে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সভাকক্ষে আলোচনা সভার আয়োজন করে।
কক্সবাজারের মহেশখালীতে উপজেলা প্রশাসনের শোকযাত্রা l প্রথম আলোফেনীতে সকালে জেল রোডে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করেন সাংসদ নিজাম উদ্দিন হাজারী। পরে শহীদ মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতিস্তম্ভ থেকে একটি শোকযাত্রা বের হয়ে জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে গিয়ে শেষ হয়। সেখানে জেলা প্রশাসন আয়োজিত আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক দেবময় দেওয়ান। এদিকে শহরের কলেজ রোডে জেলা আওয়ামী লীগের আয়োজনে আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন জেলা সভাপতি আবদুর রহমান। এ ছাড়া শিশুদের চিত্রাঙ্কন, রচনা প্রতিযোগিতা, স্বেচ্ছায় রক্তদান ও কাঙালি ভোজের আয়োজন করা হয়।
কক্সবাজারের টেকনাফে দিবসটি উপলক্ষে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন, শোকযাত্রা হয়। এরপর উপজেলা পরিষদের সম্মেলনকক্ষে এক আলোচনা সভা হয়। এদিকে টেকনাফ পৌরসভায় পাঁচ হাজার গরিব-দুস্থ নারীদের চাল বিতরণ করেন সাংসদ আবদুর রহমান বদি।
যথাযথ মর্যাদায় কক্সবাজারের মহেশখালীতে পালন করা হয়েছে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪২তম শাহাদতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস। উপজেলা প্রশাসন, আওয়ামী লীগ, পৌর আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠন, সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের উদ্যোগে শোকযাত্রা হয়। এতে নেতৃত্ব দেন সাংসদ আশেক উল্লাহ।
যথাযোগ্য মর্যাদায় খাগড়াছড়ির দীঘিনালায় জাতীয় শোক দিবস পালন করা হয়েছে। গতকাল সকালে উপজেলা শিল্পকলা একাডেমির সামনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করে উপজেলা প্রশাসন, উপজেলা পরিষদ, পুলিশ প্রশাসন, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ও উপজেলা আওয়ামী লীগ। পরে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে শোকযাত্রা বের করা হয়। এরপর উপজেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে আলোচনা সভা হয়।
চট্টগ্রামের পটিয়ায় গতকাল সকাল ১০টায় চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের পটিয়ার ভেল্লাপাড়া ক্রসিংয়ে স্থাপিত মঞ্চে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন এবং সেখানে পথসভার মধ্য দিয়ে কর্মসূচি শুরু হয়। পরে ভেল্লাপাড়া ক্রসিং থেকে কমল মুন্সিরহাট এলাকা পর্যন্ত শোকযাত্রা ও ১৬টি স্থানে পথসভা হয়। পথসভায় বক্তব্য দেন চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোছলেম উদ্দিন আহমেদ, পটিয়ার সাংসদ সামশুল হক চৌধুরী, চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান ও চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ও উপজেলা আওয়ামী লীগ সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির আহ্বায়ক মোতাহেরুল ইসলাম চৌধুরী। শোকযাত্রা ও পথসভা শেষে পটিয়া স্মৃতিসৌধ প্রাঙ্গণে দুপুরে এক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। সমাবেশে বক্তারা নৌকার বিজয়ের জন্য সবাইকে ঐক্যবদ্ধ থাকার আহ্বান জানান।
চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়া উপজেলার মুরাদের ঘোনা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে দোয়া মাহফিল, প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ ও আলোচনা সভা বিদ্যালয় মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়েছে।
চট্টগ্রামের ফটিকছড়িতে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ, দোয়া মাহফিল, আলোচনা সভাসহ নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে দিবসটি পালন করা হয়। এ ছাড়া আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গসংগঠন, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কাউন্সিল, বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন নানা কর্মসূচির আয়োজন করে। বেলা ১১টার দিকে উপজেলা প্রশাসন এক আলোচনা সভার আয়োজন করে। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন ফটিকছড়ি উপজেলা চেয়ারম্যান এম তৌহিদুল আলম।
চট্টগ্রামের আনোয়ারায় শোক দিবস উপলক্ষে সকালে উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে উপজেলা পরিষদ ও উপজেলা প্রশাসনের যৌথ উদ্যোগে শোকযাত্রা, চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান তৌহিদুল হক চৌধুরী।
চট্টগ্রামের লোহাগাড়া উপজেলায় দিবসটি উপলক্ষে গতকাল সকালে শোকযাত্রা ও আলোচনা সভার পাশাপাশি স্থানীয় উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ১৭ জন ভিক্ষুককে পুনর্বাসন করা হয়। এ ছাড়া চিত্রকর্মে বঙ্গবন্ধু শীর্ষক চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। এ উপলক্ষে উপজেলা পাবলিক মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত সভায় সভাপতিত্ব করেন লোহাগাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মাহাবুব আলম।
চট্টগ্রামের সাতকানিয়ায় উপজেলা প্রশাসনের শিশু সমাবেশ ও আলোচনা সভা হয়েছে। গতকাল বেলা ১১টায় উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে এ সভা হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন সাতকানিয়া ইউএনও মোহাম্মদ উল্যাহ। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সাতকানিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এম এ মোতালেব।
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে জাতীয় শোক দিবসের আলোচনা সভায় উপাচার্য ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী বলেন, বঙ্গবন্ধু বাঙালি জাতির সকল প্রেরণার উৎস।
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু চত্বরে এ আলোচনা সভার আয়োজন করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। আলোচনা সভা শুরুর আগে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার থেকে সকাল ৮টায় শুরু হয় শোকযাত্রা। শোকযাত্রা শেষে বঙ্গবন্ধু চত্বরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করে শ্রদ্ধা নিবেদন করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।
চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (চুয়েট) গতকাল সকালে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন চুয়েটের উপাচার্য মোহাম্মদ রফিকুল আলম। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের পাশাপাশি চুয়েটের বিভিন্ন ছাত্রসংগঠন বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে। শোক দিবস উপলক্ষে চুয়েটের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারে ‘মুক্তিযুদ্ধ ও বাংলাদেশের স্বাধীনতা’ শীর্ষক একটি কর্নারের উদ্বোধন করা হয়। পরে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মিলনায়তনে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

image_pdfimage_printPrint

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here