বেড়াতে নিয়ে যাওয়ার কথা বলেজোর করে বিয়ে

0
29

বেড়াতে নিয়ে যাওয়ার কথা বলে স্কুলপড়ুয়া এক কিশোরীকে কাজি অফিসে নিয়ে জোর করে বিয়ে করা হয়েছে। এ অভিযোগে বর ও কাজিসহ ১০ জনের বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ডাদেশ দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

আজ বৃহস্পতিবার বিকেলে শিবচর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ইমরান আহমেদ ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে এই সাজা ঘোষণা করেন। এর আগে কাজি অফিসে অভিযান চালিয়ে ওই ১০ জনকে আটক করে পুলিশ। স্কুলপড়ুয়া ওই কিশোরীর বয়স ১২ বছর।

ভ্রাম্যমাণ আদালত সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার ওই কিশোরীর সঙ্গে বহেরাতলা দক্ষিণ এলাকার আবুল কালামের ছেলে মো. জাকির হোসেনের বিয়ে ঠিক হয়। কিন্তু এই বিয়েতে কিশোরী রাজি ছিল না। এ কারণে বেড়াতে নিয়ে যাওয়ার কথা বলে তাকে কাজি অফিসে নিয়ে যায় জাকির। এমন গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ওই কাজি অফিসে অভিযান চালিয়ে বর ও কাজিসহ উভয় পক্ষের ১০ জনকে আটক করা হয়। পরে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে তাঁদের বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

ভ্রাম্যমাণ আদালত সূত্রে আরও জানা গেছে, বর মো. জাকির হোসেন (৩০), কাজি আবুল হোসেন (৩৮), কিশোরীর দুলাভাই মো. জালাল হোসেন (৩৪) ও চাচা শুক্কুর কাজিকে (৫৫) এক মাসের করে কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া রহিম মিয়া (৩৮) ও আবু বক্করকে (৩৬) ১৫ দিনের; টিটু খলিফাকে (৫০) ১০ দিনের, আরিফ মাতুব্বর (২৪), দাদন মুন্সি (৪৮) এবং গিয়াস খানকে (৫০) সাত দিন করে কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

শিবচরের ইউএনও ইমরান আহমেদ বলেন, ‘১২ বছর বয়সী ওই কিশোরী স্থানীয় একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে চতুর্থ শ্রেণিতে পড়ে। তাকে বেড়াতে নিয়ে যাওয়ার কথা বলে কাজি অফিসে নিয়ে জোর করে বিয়ে দেওয়া হচ্ছে—এমন খবর পেয়ে আমরা সেখানে অভিযান চালাই। পরে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে বর-কাজিসহ ১০ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দেওয়া হয়েছে।’

image_pdfimage_printPrint

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here