আদালতের পর্যবেক্ষণ | রাম রহিম ‘বন্য পশু’

0
34

দুই শিষ্যকে ধর্ষণের অপরাধে ভারতের বিতর্কিত ধর্মগুরু গুরমিত রাম রহিম সিংকে ২০ বছরের কারাদণ্ড দিয়ে আদালত পর্যবেক্ষণে বলেছেন, রাম রহিম ‘বন্য পশু’। তিনি কোনো ধরনের ক্ষমা এবং উদারতা পাওয়ার যোগ্য নন।

সরকারের তদন্ত সংস্থা সেন্ট্রাল ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (সিবিআই) বিশেষ বিচারক জগদীপ সিং সোমবার এই সাজা ঘোষণার পর রায়ে বলেছেন, ভক্তদের ওপর রাম রহিম সিংয়ের এই নিপীড়ন ছিল ‘হেফাজতে ধর্ষণ’। তাঁর এর জন্য প্রাপ্য ‘সর্বোচ্চ সাজা’।

বিবিসির খবরে বলা হয়েছে, রাম রহিমের দুই শিষ্যকে ১৯৯৯ থেকে ২০০২ সাল পর্যন্ত ধর্ষণ করেছেন বলে প্রমাণ পেয়েছেন আদালত। এ জন্যই তাঁকে দুই ধর্ষণের ঘটনায় ১০ বছর করে মোট ২০ বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। কৌশলী অবশ্য রাম রহিমের যাবজ্জীবন সাজা চেয়েছিলেন।
এক আইনজীবী বলেছেন, আরও ৪০-৫০ নারী রাম রহিমের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ নিয়ে এসেছেন। এই অভিযোগগুলো নিয়েও তদন্ত হবে।

কেবল ধর্ষণ নয়, রাম রহিমের বিরুদ্ধে হত্যার অভিযোগও রয়েছে। স্বঘোষিত এই ধর্মগুরুর কুকীর্তির কাহিনি ফাঁস করেছিলেন স্থানীয় সাংবাদিক রামচন্দ্র ছত্রপতি। তাঁকে খবর দিতেন ডেরারই সাবেক সাধু রঞ্জিত। তার অভিযোগ, এই দুজনকেই স্বঘোষিত ধর্মগুরু খুন করান। সেই মামলার নিষ্পত্তি এখনো হয়নি। আগামী মাসে সেগুলোর শুনানি হবে।

সাজার রায়ে বিচারক জগদীপ সিং বলেছেন, সর্বোচ্চ সাজাই রাম রহিম প্রাপ্য। কেননা তিনি নিজেকে ধর্মগুরু হিসেবে উপস্থাপন করেন। কিন্তু তিনি নিজের অবস্থান এবং কর্তৃত্বের অনৈতিক সুবিধা নিয়েছেন। আক্রান্ত ব্যক্তিরা রাম রহিমকে দেবতার আসনে বসিয়েছিলেন। তাঁকে সে অনুযায়ী সম্মান করতেন। কিন্তু এই অপরাধী অন্ধ ভক্তদের সঙ্গে প্রতারণা করেছেন এবং যৌন নিপীড়ন করেছেন।

বিচারক বলেন, রাম রহিম একজন প্রভাবশালী ব্যক্তি ছিলেন। এ ধরনের সম্ভাব্য অপরাধীদের বিরত রাখতে যথাযথ সাজাই দেওয়া উচিত। সর্বোচ্চ সাজা থেকে কম সাজা দেওয়া হলে তা মানুষের মনে আঘাত করত।

রাম রহিমের আইনজীবীরা অবশ্য বিচারপতিকে অনুরোধ করেছিলেন কম সাজা দেওয়ার জন্য। তাঁদের বক্তব্য, রাম রহিম একজন ধর্মীয় নেতা ও সমাজসংস্কারক। সারা দেশে তাঁর লাখ লাখ ভক্ত ও অনুগামী। অনেক আশ্রম চালান তিনি। শিক্ষার প্রসার ও আধ্যাত্মিক চেতনার বিকাশ ঘটিয়ে তিনি মানুষের উপকার করছেন। এ ছাড়া তিনি উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিসসহ বিভিন্ন রোগে ভুগছেন। অতএব, বিচারপতি যেন সবচেয়ে কম শাস্তি দেন।

শুক্রবার রাম রহিমকে দোষী সাব্যস্ত করেন আদালত। রায়ের পরপর উত্তরাঞ্চলীয় রাজ্য হরিয়ানা, পাঞ্জাব ও দিল্লিতে তাণ্ডব চালান তাঁর ভক্তরা। সহিংসতায় প্রাণ হারান ৩৮ ব্যক্তি। আহত হন কমপক্ষে ২৫০ জন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সেনা মোতায়েন করা হয়। পরে সোমবার কড়া নিরাপত্তায় হরিয়ানার সানোরিয়া কারাগারে আদালত বসে। সেখানে এই ধর্মগুরুকে সাজা দেওয়া হয়।

image_pdfimage_printPrint

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here