এবার পাঞ্জাবে মাসহ সাংবাদিককে হত্যা

0
41

ভারতের কেরালা ও ত্রিপুরার পর এবার পাঞ্জাবের চণ্ডীগড়ে কে জে সিং (৬৪) নামের এক জ্যেষ্ঠ সাংবাদিককে গলা কেটে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। এ সময় সিংয়ে মা গুরুচরণ কৌরকে (৯২) শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়।

আজ রোববার টাইমস অব ইন্ডিয়ার প্রতিবেদনে বলা হয়, গতকাল শনিবার দুপুরে চণ্ডীগড়ের মোহালি এলাকার বাড়ি থেকে সাংবাদিক সিং ও তাঁর মায়ের মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

পুলিশ বলছে, ধারণা করা হচ্ছে, গত শুক্রবার রাতে দুর্বৃত্তরা কে জে সিংয়ের মোহালির বাড়িতে ঢুকে এই ঘটনা ঘটিয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, গতকাল দুপুরে খাবার দিতে কে জে সিংয়ের বোন ও ভাগনে ওই বাড়িতে যান। দরজায় কড়া নাড়ার শব্দে কেউ সাড়া দেননি। সিংয়ের সঙ্গে মুঠোফোনেও যোগাযোগ করতে পারেননি তাঁরা। এরপর তাঁরা দরজা ভেঙে ভেতরে ঢোকেন। মেঝেতে রক্ত দেখে পুলিশে খবর দেন। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ দুটি উদ্ধার করে।

পুলিশ বলছে, দুর্বৃত্তরা কে জে সিংয়ের পেটে পাঁচবার ছুরিকাঘাত করেছে। পরে গলা কেটে তাঁর মৃত্যু নিশ্চিত করেছে। এ ছাড়া সিংয়ের মাকে শ্বাসরোধে হত্যা করেছে তারা। বাড়ি থেকে একটি গাড়ি, ঘড়ি, টিভি ও সিংয়ের মুঠোফোনের খোঁজ মিলছে না।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, কে জে সিং ২০০০ থেকে ২০০৫ সাল পর্যন্ত টাইমস অব ইন্ডিয়ায় কর্মরত ছিলেন। এ ছাড়া তিনি ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস ও দ্য ট্রিবিউনে কাজ করেছিলেন। মায়ের দেখভালের জন্য গত আট বছর আগে তিনি এই চাকরি ছেড়ে দেন।

মোহালির জ্যেষ্ঠ পুলিশ সুপার কুলদীপ সিং চাহাল বলেন, দুর্বৃত্তরা হত্যার পর সাংবাদিকে কে জে সিংয়ের একটি ফোর্ড গাড়ি, এলইডি টিভি ও তাঁর মায়ের গয়না নিয়ে পালিয়েছে। সিংয়ের মানিব্যাগ ও মুঠোফোনেরও কোনো খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না। তবে পাঁচ থেকে ছয় লাখ টাকার দামি ক্যামেরা, ল্যাপটপ ও সিংয়ের গলার সোনার চেইন তারা নেয়নি। বাড়ির কোনো আলমারিও ভাঙচুর করেনি। তাই ডাকাতির উদ্দেশ্যে এই হত্যাকাণ্ড ঘটেছে, তা এখনই বলা যাবে না। এর পেছনে আরও কোনো কারণ থাকতে পারে। তদন্তের পর তা বলা যাবে।

পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী অমরিন্দর সিং এ ঘটনায় বিশেষ তদন্ত দল (এসআইটি) গঠনের জন্য পুলিশকে নির্দেশ দিয়েছেন।

এর আগে গত বুধবার ত্রিপুরা রাজ্যের মান্দাই এলাকায় পৃথক রাজ্যের দাবিতে আন্দোলনরতদের মারধরে শান্তনু ভৌমিক (২৮) নামের এক সাংবাদিক নিহত হন। ৫ সেপ্টেম্বর রাতে বেঙ্গালুরুতে গৌরী লঙ্কেশ (৫৫) নামের এক সাংবাদিককে গুলি হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। গৌরী লঙ্কেশ ‘লঙ্কেশ’ নামের ট্যাবলয়েড চালাতেন। তাঁর বাবা একজন লেখক ছিলেন। এর ঠিক দুই দিন পর বিহারে পঙ্কজ মিশ্র (৪০) নামের আরেক সাংবাদিককে গুলি করেছে দুর্বৃত্তরা। তিনি রাষ্ট্রীয় সাহারা সংবাদপত্রের সাংবাদিক। আরওয়াল জেলা শহরের বাঁশি থানার কাছে এ ঘটনা ঘটে। এ সময় পঙ্কজের কাছ থেকে এক লাখ রুপি ছিনিয়ে নিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা। গুলিবিদ্ধ পঙ্কজকে পাটনা মেডিকেল কলেজে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে একজনকে আটক করেছে পুলিশ।

image_pdfimage_printPrint

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here