ভয় দেখিয়ে মেয়েকে ধর্ষণ করত বাবা

0
151

ভয় দেখিয়ে দিনের পর দিন মেয়েকে ধর্ষণ করার অভিযোগে কলকাতার পূর্ব মেদিনীপুর জেলার নন্দকুমার থানার টিকারামপুরে এক ব্যক্তিকে আটক করেছে পুলিশ। অভিযুক্তের নাম শংকর গায়েন। বাড়ি খেজুরি থানার কুঞ্জপুর গ্রামে। অভিযুক্ত শংকরকে নন্দকুমার থানার পুলিশ আটক করেছে।

গত ১৭ বছর আগে নন্দকুমার থানার টিকারামপুরের বিজলী দেবীর সঙ্গে খেজুরি থানার শংকর গায়েনের বিয়ে হয়। তাদের ১৬ বছরের একটি মেয়ে ও ১২ বছরের একটি ছেলেও রয়েছে। শংকরের অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে বিজলী দেবি তার ছেলে ও মেয়েকে নিয়ে বাপের বাড়িতে চলে আসে। সেখানেই তারা থাকতে শুরু করে। মাঝে মধ্যে দেখা করার নাম করে শংকর শশুরবাড়িতে আসত।

অভিযোগ, সেই সময় মেয়েকে ভয় দেখিয়ে শারীরিক অত্যাচার ও ধর্ষণ করত। বাবার এই কুকর্মের কথা জানিয়ে দেওয়ার কথা বললে মা ও তার ভাইকে খুন করার হুমকি দিত। এই ভয়ে মেয়েটি কাউকে কিছু বলতে পারেনি।

গতকাল শুক্রবার বিকেলে শংকর তার শশুরবাড়িতে আসে। এসে স্ত্রী বিজলী দেবীর সঙ্গে কথা কাটাকাটি হতে থাকে। সেই সময় বিজলী দেবীর মেয়ে বাবার কুকীর্তির কথা সব বলে দেয়। এরপর নন্দকুমার থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন বিজলী দেবী। নন্দকুমার থানার পুলিশ এই ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে। অভিযুক্ত শংকরকে আটক করে জিঞ্জাসাবাদ করছে বলে জানা গেছে।

ভয় দেখিয়ে দিনের পর দিন মেয়েকে ধর্ষণ করার অভিযোগে কলকাতার পূর্ব মেদিনীপুর জেলার নন্দকুমার থানার টিকারামপুরে এক ব্যক্তিকে আটক করেছে পুলিশ। অভিযুক্তের নাম শংকর গায়েন। বাড়ি খেজুরি থানার কুঞ্জপুর গ্রামে। অভিযুক্ত শংকরকে নন্দকুমার থানার পুলিশ আটক করেছে।

গত ১৭ বছর আগে নন্দকুমার থানার টিকারামপুরের বিজলী দেবীর সঙ্গে খেজুরি থানার শংকর গায়েনের বিয়ে হয়। তাদের ১৬ বছরের একটি মেয়ে ও ১২ বছরের একটি ছেলেও রয়েছে। শংকরের অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে বিজলী দেবি তার ছেলে ও মেয়েকে নিয়ে বাপের বাড়িতে চলে আসে। সেখানেই তারা থাকতে শুরু করে। মাঝে মধ্যে দেখা করার নাম করে শংকর শশুরবাড়িতে আসত।

অভিযোগ, সেই সময় মেয়েকে ভয় দেখিয়ে শারীরিক অত্যাচার ও ধর্ষণ করত। বাবার এই কুকর্মের কথা জানিয়ে দেওয়ার কথা বললে মা ও তার ভাইকে খুন করার হুমকি দিত। এই ভয়ে মেয়েটি কাউকে কিছু বলতে পারেনি।

গতকাল শুক্রবার বিকেলে শংকর তার শশুরবাড়িতে আসে। এসে স্ত্রী বিজলী দেবীর সঙ্গে কথা কাটাকাটি হতে থাকে। সেই সময় বিজলী দেবীর মেয়ে বাবার কুকীর্তির কথা সব বলে দেয়। এরপর নন্দকুমার থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন বিজলী দেবী। নন্দকুমার থানার পুলিশ এই ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে। অভিযুক্ত শংকরকে আটক করে জিঞ্জাসাবাদ করছে বলে জানা গেছে।

image_pdfimage_printPrint

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here