রবিবার, এপ্রিল ১৮, ২০২১
Home Blog Page 2

দুদকের জালে আঁটকা পড়লেন কালীগঞ্জের দলিল লেখক নাসির সাথে ৬ কোটি টাকার অবৈধ সম্পদ

0

স্টাফ রিপোর্টার, ঝিনাইদহঃ
ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ সাব-রেজিষ্ট্রি অফিসের সেই মহাদুনীর্তিবাজ দলিল লেখক নাসির উদ্দীন চৌধুরী এখন দদুদকের জালে। পৈত্রিক সুত্রে পাওয়া মাত্র ০৪ শতক জমি থেকে এখন মাঠে প্রায় ৬০ বিঘা জমি। ব্যংকে কোটি কোটি টাকা। আলিশান বাড়ি। স্ত্রী থাকার পরও শ্যালিকা বিয়ে করে তাদেরও সম্পদ দিয়ে ভরপুর করেছেন। গল্পটি শুনতে আবাক হলেও পেশায় একজন দলিল লেখকের এই অঢেল সম্পদের সন্ধান পেয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন। অর্থ আর রাজনৈতিক ক্ষমতায় হয়েছেন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান। চলাফেরা করেন দাপটের সঙ্গে। হত্যাসহ একাধিক মামলা ছিল। ঝিনাইদহ কালীগঞ্জের নাসির চৌধুরী নামের এই দলিল লেখকের বিরুদ্ধে প্রায় ৬ কোটি টাকার অবৈধ পন্থায় অর্থ উপার্যনের অভিযোগে দুদুক মামলা করেছেন। দুদকের যশোর কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মোহাঃ মোশারফ হোসেন বাদি হয়ে ঝিনাইদহ জেলা ও দায়রা জজ আদালতে এই মামলাটি করেন। আদালত মামলাটি নথিভুক্ত করে আগামী বছরের ৩ জানুয়ারী প্রতিবেদন দেওয়ার জন্য তদন্তকারী কর্মকর্তাকে নির্দেশ দিয়েছেন। নাসির চৌধুরী ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার সিমলা-রোকন পুরইউনিয়নের পুকুরিয়া গ্রামের জামসের আলী চৌধুরীর ছেলে। তিনি বর্তমানে কালীগঞ্জ উপজেলা সাব-রেজিষ্ট্রি অফিসের দলিল লেখক হিসেবে সমিতির সাধারণ সম্পাদক। পাশাপাশি তিনি কালীগঞ্জের সিমলা-রোকনপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন। মামলার এজাহার সুত্রে জানা গেছে, দুদুক সম্মনিত জেলা কার্যালয় যশোরের সাবেক সহকারী পরিচালক মোঃ শহিদুল ইসলাম মোড়ল নাসির চৌধুরীর বিরুদ্ধে থাকা অভিযোগ গুলোর তদন্ত করেন। তদন্তকালে দেখা যায় আসামী নাসির চৌধুরী তার নিজ নামে ব্র্যাক ব্যাংক লিঃ যশোর শাখায় একটি সঞ্চয়ী হিসাব ও ১২ টিএফডিআর হিসাব খোলেন। এগুলোতে তিনি বিভন্নি সময়ে মোটা অংকের টাকা লেনদেন করেন। কোনো কোনো ক্ষেত্রে সঞ্চয়ী হিসাব থেকে টাকা স্থানন্তর করে অন্য এফডিআর এ জমা করা হয়েছে। সর্বপরি সকল ক্ষেত্রে এফডিআর হতে হস্তান্তর করে মূল সঞ্চয়ী হিসাবে এনে আবার সেখান থেকে উত্তোলন করেন। নাসিরউদ্দিন চৌধুরী ২০১২ সালের ৭ ফেব্রয়ারি ২০১৮ সালের ৩০ জুলাই পর্যন্ত বিভিন্ন সময়ে মোট ৭ টিএফডিআর এ ১ কোটি ৭৬ লাখ ৯০ হাজার টাকা জমা করেছিলেন। যা থেকে তিনি ০১/১১/২০১৫ তারিখে ৩১ লাখ ৫০ হাজার টাকা উত্তোল করে একই ব্যাংকে স্ত্রী খাদিজা বেগমের নামে সঞ্চয়ী হিসাবে হস্থান্তর করেন। এছাড়া তিনি ওই শাখায় স্ত্রী খাদিজা বেগমের নামে একটি সঞ্চয়ী ও ৫ টিএফডিআর খুলে লেনদেন করেন। যার মধ্যে সঞ্চয়ী হিসাবটি এখনও চলমান রয়েছে। ০৪/০২/২০১৩ তারিখ থেকে ০৭/১১/২০১৯ তারিখে ওই ৬টি সঞ্চয়ী ও এফডিআরের মাধ্যমে বিপুর পরিমান টাকা লেনদেন করেন। তিনি স্ত্রীর নামের এই সকল এফডিআর ও সঞ্চয়ী হিসাব থেকে ১ কোটি ২৭ লাখ ৪৭ হাজার ৪১৬ টাকা উত্তোলন পূর্বক স্থানন্তর করেন। অভিযুক্ত নাসির উদ্দিন তার শালিকা (দ্বিতীয় স্ত্রী) মোছাঃ মাহফুজা খাতুনের নামে যশোরের ব্র্যাক ব্যাংকে একটি সঞ্চয়ী হিসাব ও ৪ টিএফডিআর খুলে দেলদেন করেন। যার মধ্যে বর্তমানে একটিও চলমান নেই। ওই ৫টি হিসাব পর্যালোচনা করে দুদক নিশ্চিত হয়েছেন অভিযুক্ত নাসির উদ্দিন তার দ্বিতীয় স্ত্রীর সঞ্চয়ী হিসাবের টাকা জমা করে সেখান থেকে এফডিআর হিসাবে জমা করেছেন। যেখান থেকে আবার সঞ্চয়ী নিয়ে যাওয়া হয়েছে। গত ০২/০২/২০১৪ তারিখ থেকে ১৪/০৫/২০১৯ তারিখ পর্যন্ত মোট ১ কোটি ৫৬ লাখ ৩৫ হাজার ৬২৮ টাকা উত্তোলন পূর্বক স্থানন্তর করেছেন। নাসির উদ্দিন চৌধুরী তার শ্যালক মোঃ জিয়াকুব আলীর নামে একই ব্র্যাক ব্যাংক ও যশোরের এবি ব্যাংকে এফডিআর ও এম.আই.ডি.এস হিসাব খুলে ৮০ লাখ টাকা জমা করেছিলেন। যা সম্পূর্ণ উত্তোলন করে অন্যত্র স্থানন্তর করেন। তার শ্যালক তদন্তকারী সংস্থাকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। নাসির উদ্দিন চৌধুরীর কলেজ পড়য়া ছেলে মোঃ মারুফ হোসেন রিয়াজের নামে রুপালী ব্যাংক লিঃ কালীগঞ্জ শাখায় আর.এস.এস হিসাব খুলে সেখানে ৩০ লাখ টাকা জমা করেন। মামলায় আরো উল্লেখ করা হয়েছে অভিযুক্ত নাসির উদ্দিন চৌধুরী অবৈধ পন্থায় দূর্নীতির মাধ্যমে ৫ কোটি ৭০ লাখ ৭৩ হাজার ৪৪ টাকা অর্জন করেছেন। তিনি নিজ নামে, প্রথম স্ত্রী খোদেজা বেগম, দ্বিতীয় স্ত্রী মাহফুজা খাতুন, শ্যালক জিয়াকুব আলী ও ছেলে মারুফ হোসেন রিয়াজের নামে বিভিন্ন ব্যাংকে এফডিআরে জমা করেন। পরবর্তীতে সম্পূর্ণ টাকা উত্তোলন করে অন্যত্র স্থানন্তর করেন। আর এই অপরাধে তার বিরুদ্ধে মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ আইন ২০১২ এর ৪(২) ধারায় সিনিয়র স্পোশাল জজ আদালতে মামলার আবেদন করা হয়। আদালত সুত্রে জানাগেছে, গত ২৪ নভেম্বর দুদুক কর্মকর্তা ঝিনাইদহ জেলা ও দায়রা জজ আদালতে মামলাটি নথিভুক্ত করার আবেদন করেন। আদালত শুনানী শেষে ৩০ নভেম্বর আদেশের দিন ধার্য্য করেন। ধার্য্য তারিখে মামলা নথিভুক্ত করে আগামী ৩ জানুয়ারীর মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দেওয়ার জন্য মামলার তদন্তকারী দুদুক কর্মকর্তাকে নির্দেশ দিয়েছেন। এ বিষয়ে দুদক যশোর কার্যালয়ের উপ-পরিচালক মোঃ নাজমুস সাদাত জানান, তারা দুদক প্রধান কার্যালয় থেকে অনুমতি পেয়ে অভিযুক্তের বিরুদ্ধে তদন্ত ও পরবর্তীতে আদালতে মামলা দায়ের করেছেন। মামলাটি তদন্ত চলছে, এখনও আসামী গ্রেপ্তার হয়নি। এ বিষয়ে দলিল লেখক নাসির উদ্দীন চৌধুরী জানান, মামলা দায়েরের খবর তিনি জানেন না। তাই এ বিষয়ে তিনি কোন মন্তব্য করতে চান নি। উল্লেখ্য দুর্নীতিবাজ নাসিরের কালীগঞ্জ শহরের আড়পাড়ায় ৩টি আলীশান বাড়ি, নদীপাড়ায় একটি ও কুল্লোপাড়ায় বাগান বাড়ি রয়েছে। দলিল লেখক নাসির চৌধুরীর জমিজাতি আছে অঢেল। গ্রামে তার কারণে কেও উচ্চমুল্যে জমি কিনতে পারে না। তার কাছে জমি বিক্রি না করলে বাড়ি হামলা করা হয়। গ্রামের কোন বিবাহিত মেয়ে পিতামাতার ফারাজ বিক্রি করতে চাইলে কম টাকায় সেই জমি কিনে নেন নাসির। পিতার ৪ শতক জমি থেকে নাসির চৌধুরী শত কোটি টাকার জমি কিনেছেন। সর্বশেষ তথ্য মতে নাসিরের নামে ৫৯.২৭ বিঘা জমির সন্ধান মিলেছে। কালীগঞ্জের বাবরা, পকুরিয়া, তিল্লা, ডাকাতিয়া, এ্যাড়েখাল, মনোহরপুর, সিমলাসহ বিভিন্ন মাঠে এই জমি রয়েছে। এ নিয়ে ২০১৯ সালে বিভিন্ন গনমাধ্যমে একাধিক সংবাদ প্রকাশিত হয়। উল্লেখ্য গত ২৩ নভেম্বর যশোর দুর্ণীতি দমন কমিশন সমন্বিত জেলা কর্যালয়ের উপ-পরিচালক মোঃ নাজমুচ্ছায়াদাত মামলাটি রুজু করেন।

হরিণাকুন্ড দারিয়াপুর গ্রামে ব্রিজ না থাকায় হাজারো মানুষের চরম ভোগান্তি

0

জাহিদুর রহমান তারিক, ঝিনাইদহ
ব্রিজটি ঝিনাইদহের হরিণাকুন্ডু উপজেলার শাঁখারীদহ বাজার সংযোগ সড়কের দারিয়াপুর গ্রামে একটি ব্রিজ না থাকায় হাজারো মানুষের ভোগান্তির কারণ হয়ে দাড়িয়েছে। ব্রিজটি দিয়ে কয়েকটি গ্রামের মানুষ চলাচল করেন। তবুও টনক নড়ে না সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের। ঝিনাইদহ সদর উপজেলার নগরবাথান বাজার থেকে শত শত মানুষ ওই পথ দিয়ে যাতায়াত করেন। প্রায় এক বছর ধরে নির্মানের অভাবে এভাবেই পড়ে রয়েছে। নিরুপায় হয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়েই চলাচল করতে হচ্ছে এ অঞ্চলের মানুষদের। চলাচল করতে গিয়ে প্রায়ই ঘটছে ছোট-বড় দূর্ঘটনা। জীবিকার তাগিদে গ্রামের মানুষ এই পথ দিয়ে হরিণাকুন্ডু উপজেলাসহ জেলা শহরে যাতায়াত করছে। এই পথে চলাচল করতে গিয়ে সবচে বেশি ভোগান্তির শিকার হচ্ছে রিক্সা, ইজিবাইক ও নছিমন চালকরা। তাদের দীর্ঘ পথ ঘুরে চলাচল করতে হয়। এলাকাবাসী জানান, আম্ফান ঝড়ের পরের দিন ব্রিজটি ভেঙ্গে পড়ে যায়। কিন্তু এখনো কোন কাজ হয়নি। নিরুপায় হয়ে এলাকাবাসী বাঁশ দিয়ে সাঁকো তৈরি করে ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছেন। তবে ব্রিজটি নির্মাণকারী সংস্থা এলজিইডি কর্মকর্তারা বলছেন, বিষয়টি সম্পর্কে তারা অবহিত আছেন। এ বিষয়ে হরিণাকুন্ডু উপজেলা এলজিইডি কার্যালয়ের উপ সহকারি প্রকৌশলী লিয়াকত আলী জানান, ব্রিজটি দ্রæত নির্মান করার প্রয়োজনীয়তা তুলে ধরে প্রধান কার্যালয়ে চিঠি দেওয়া হয়েছে। বরাদ্দ পেলে ব্রিজটি করা হবে।

দুর্নীতি-অনিয়ম করায় মধুহাটী ইউপির চেয়ারম্যানসহ ৫ মেম্বর সাময়িক বরখাস্ত

1
দুর্নীতি-অনিয়ম করায় মধুহাটী ইউপির চেয়ারম্যানসহ ৫ মেম্বর সাময়িক বরখাস্ত

স্টাফ রিপোর্টার, ঝিনাইদহঃ
সরকারের খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির তালিকা প্রণয়নে দুর্নীতি-অনিয়ম ও সরকারি কাজে অবহেলার অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় ঝিনাইদহ সদর উপজেলার ২ নং মধুহাটী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ফারুক হোসেন জুয়েলসহ ৫ জন ইউপি সদস্যকে সাময়িক বরখাস্ত করেছে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়। স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের উপসচিব মোহাম্মদ ইফতেখার আহমেদ চৌধুরী স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে (যার স্মারক নং ১৩৫৫) এ তথ্য জানা গেছে। অন্যদিকে ১৩৬৫ নং স্মারকে কেন উল্লেখিত ৬ জনকে চুড়ান্ত ভাবে অপসারণ করা হবে না তা পত্র প্রাপ্তির ১০ দিনের মধ্যে জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে স্থানীয় সরকার বিভাগকে জানাতে বলা হয়েছে। সাময়িক বরখাস্ত অন্যান্যরা হলেন, মধুহাটী ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ডের সদস্য চোরকোল গ্রামের আশরাফুল ইসলাম,২ নং ওয়ার্ডের সদস্য শ্রীপুর গ্রামের শ্রী শান্তি বিশ্বাস, ৪ নং ওয়ার্ডের সদস্য নওদাপাড়া গ্রামের মোঃ আঃ মজিদ, ৬ নং ওয়ার্ডের সদস্য কুবিরখালী গ্রামের মোঃ গোলাম রসুল এবং ৮ নং ওয়ার্ডের সদস্য বেড়াশুলা গ্রামের মোঃ রসুল। প্রজ্ঞাপনের চিঠিতে বলা হয়েছে, জনস্বার্থে সাময়িক বহিস্কার করে ইউনিয়ন পরিষদ আইন ২০০৯ এর ৪ এর (খ) ও (ছ) ধারা অনুযায়ী কেন চূড়ান্তভাবে অপসারণ করা হবে না জানতে ১০ কার্যদিবসের মধ্যে জেলা প্রশাসক বরাবর কারণ দর্শানোর নোটিশ প্রদান করেছে। ঝিনাইদহ জেলা প্রশাসকের দপ্তর থেকে জানা গেছে, করোনাকালীন সময়ে সরকারের ১০ টাকা কেজি খাদ্যবান্ধব কর্মসূচিতে ব্যাপক দুর্নীতি অনিয়ম ধরা পড়ে মধুহাটী ইউনিয়নে। পরিষদের চেয়ারম্যান ফারুক হোসেন জুয়েল ইউপি সদস্যদের সাথে যোগসাজশে একই জাতীয় পরিচয় পত্র ব্যবহার করে প্রায় ৪০টি কার্ড করে চাল আত্মহসাত করে আসছিলেন। এই কর্মসূচিতে প্রায় ৩০০টি কার্ডে এই অনিয়ম ধরা পড়ে। এই বিষয়ে অত্র দৈনিকে তথ্য ভিত্তিক সংবাদ প্রকাশিত হলে জেলা প্রশাসনের দপ্তর থেকে সরেজমিন তদন্ত করা হয়। তদন্তে অনিয়মের চিত্রটি ধরা পড়ে। প্রথমে দুইজন ডিলার মহামায়া গ্রামের জানেব মন্ডলের ছেলে জিয়াউর রহমান নয়ন ও নওদাপাড়া গ্রামের সবদার আলীর ছেলে ইমদাদুল হককে বরখাস্ত করা হয়। স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক আরিফ উজ জামান চেয়ারম্যান ফারুক হোসেন জুয়েলসহ ৭ জন ইউপি সদস্যকে বহিস্কারের সুপারিশ করে মন্ত্রণালয়ে প্রতিবেদন প্রেরণ করেন। ঝিনাইদহ জেলা প্রশাসনের স্থানীয় সরকার বিভাগ সাময়িক বরখাস্তের খবরটি নিশ্চিত করেছে।
ঝিনাইদহের মধুহাটী ইউপির চেয়ারম্যানসহ ৫ মেম্বর সাময়িক বরখাস্ত
স্টাফ রিপোর্টার, ঝিনাইদহঃ
সরকারের খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির তালিকা প্রণয়নে দুর্নীতি-অনিয়ম ও সরকারি কাজে অবহেলার অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় ঝিনাইদহ সদর উপজেলার ২ নং মধুহাটী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ফারুক হোসেন জুয়েলসহ ৫ জন ইউপি সদস্যকে সাময়িক বরখাস্ত করেছে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়। স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের উপসচিব মোহাম্মদ ইফতেখার আহমেদ চৌধুরী স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে (যার স্মারক নং ১৩৫৫) এ তথ্য জানা গেছে। অন্যদিকে ১৩৬৫ নং স্মারকে কেন উল্লেখিত ৬ জনকে চুড়ান্ত ভাবে অপসারণ করা হবে না তা পত্র প্রাপ্তির ১০ দিনের মধ্যে জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে স্থানীয় সরকার বিভাগকে জানাতে বলা হয়েছে। সাময়িক বরখাস্ত অন্যান্যরা হলেন, মধুহাটী ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ডের সদস্য চোরকোল গ্রামের আশরাফুল ইসলাম,২ নং ওয়ার্ডের সদস্য শ্রীপুর গ্রামের শ্রী শান্তি বিশ্বাস, ৪ নং ওয়ার্ডের সদস্য নওদাপাড়া গ্রামের মোঃ আঃ মজিদ, ৬ নং ওয়ার্ডের সদস্য কুবিরখালী গ্রামের মোঃ গোলাম রসুল এবং ৮ নং ওয়ার্ডের সদস্য বেড়াশুলা গ্রামের মোঃ রসুল। প্রজ্ঞাপনের চিঠিতে বলা হয়েছে, জনস্বার্থে সাময়িক বহিস্কার করে ইউনিয়ন পরিষদ আইন ২০০৯ এর ৪ এর (খ) ও (ছ) ধারা অনুযায়ী কেন চূড়ান্তভাবে অপসারণ করা হবে না জানতে ১০ কার্যদিবসের মধ্যে জেলা প্রশাসক বরাবর কারণ দর্শানোর নোটিশ প্রদান করেছে। ঝিনাইদহ জেলা প্রশাসকের দপ্তর থেকে জানা গেছে, করোনাকালীন সময়ে সরকারের ১০ টাকা কেজি খাদ্যবান্ধব কর্মসূচিতে ব্যাপক দুর্নীতি অনিয়ম ধরা পড়ে মধুহাটী ইউনিয়নে। পরিষদের চেয়ারম্যান ফারুক হোসেন জুয়েল ইউপি সদস্যদের সাথে যোগসাজশে একই জাতীয় পরিচয় পত্র ব্যবহার করে প্রায় ৪০টি কার্ড করে চাল আত্মহসাত করে আসছিলেন। এই কর্মসূচিতে প্রায় ৩০০টি কার্ডে এই অনিয়ম ধরা পড়ে। এই বিষয়ে অত্র দৈনিকে তথ্য ভিত্তিক সংবাদ প্রকাশিত হলে জেলা প্রশাসনের দপ্তর থেকে সরেজমিন তদন্ত করা হয়। তদন্তে অনিয়মের চিত্রটি ধরা পড়ে। প্রথমে দুইজন ডিলার মহামায়া গ্রামের জানেব মন্ডলের ছেলে জিয়াউর রহমান নয়ন ও নওদাপাড়া গ্রামের সবদার আলীর ছেলে ইমদাদুল হককে বরখাস্ত করা হয়। স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক আরিফ উজ জামান চেয়ারম্যান ফারুক হোসেন জুয়েলসহ ৭ জন ইউপি সদস্যকে বহিস্কারের সুপারিশ করে মন্ত্রণালয়ে প্রতিবেদন প্রেরণ করেন। ঝিনাইদহ জেলা প্রশাসনের স্থানীয় সরকার বিভাগ সাময়িক বরখাস্তের খবরটি নিশ্চিত করেছে।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাষ্কর্য নিয়ে কটুক্তি করায় মানববন্ধন

21
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাষ্কর্য নিয়ে কটুক্তি করায় মানববন্ধন

গতকাল শনিবার বিকেলে যশোরের দড়াটানায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর ভাষ্কর্য স্থাপন সম্পর্কে কটুক্তি করায় প্রতিবাদে রাজনৈতিক পার্টি হেফাজত মহাজোটের সাথ যুক্ত থেকে এতদিন দেশ সেবা করে আসছে। কিন্তু বর্তমানে মহাজটের কর্মকান্ডকে সমর্থন না করে বিভিন্ন কটুক্তি ও ঋণাত্মক মন্তব্য করে। এই মন্তব্য ও কটুক্তিতে ক্ষুব্ধ হয় জনতা ও আওয়ামীলীগের অঙ্গসংঙ্গঠন রাজেনৈতিক দলগুলো। এরই ধারাবাহিকতায় প্রতিবাদে আজ মানববন্ধন করা হয়। মানববন্ধনে মহাজোট থেকে হেফাজতকে বাদ দেওয়ার দাবি জানান। মানব বন্ধনকারীরা ক্ষোভ প্রকাশ করেন যে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে বা তার ভাষ্কর্য নিয়ে আমরা কোন কটুক্তি সয্য করব না। কারন তিনি বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব কে রক্ষার জন্য তার সারা জীবন উৎসর্গ করেছেন।

রিপোর্টার

ধর্ষণ ও নির্যাতনের ফাঁদে পড়লেন অসহায় গার্মেন্টস শ্রমিক সাথী

2
ধর্ষণ ও নির্যাতনের ফাঁদে পড়লেন অসহায় গার্মেন্টস শ্রমিক সাথী

আবির, বাংলাদেশ নিউজ২৪

আর কত এভাবে ধর্ষনের শিকার হবেন আমাদের মা-বোন? এর কি হবে না কোন প্রতিকার?
মেয়েটিকে ধর্ষণ করেই ক্ষান্ত হয়নি হায়নার দল। অবশেষ নিজের মেয়ের জামাই ও ছেলেকে দিয়েও ধর্ষণ করাতে চেয়েছিলেন ধর্ষক হোটেল ব্যবসাায়ী ফরিদ! মেয়েটিকে রাস্তা থেকে ফরিদের স্ত্রী লাভলী আক্তার ডেকে এনে নিজ বাসভবনে ঢোকান। পরে স্বামী ফরিদকে নাটকের আদলে রেখে ফরিদের প্রেমিকা রহিমা আক্তার সাথীকে লাভলীর মেয়ে জামাই আর নিজের ছেলেকে দিয়ে চালায় পাষবিক অত্যাচার। পরে লাভলীর মেয়ে এবং লাভলীর ছোট বোনসহ প্রায় ৫/৬ জন মিলে মেয়েটিকে নির্মমভাবে মেরে রক্তাক্ত করে মাথার চুল গোড়া থেকে কামিয়ে দেয়। এমন অমানুষিক নির্যাতনের অধিকার তারা কোথায় পেলেন? বিষয়টি সাথী তাৎক্ষণিকভাবে চেপে গেলেও পরিস্থিতি তাকে ছাড়েনি। বাধ্য করেছে সাথীকে প্রথমে হাসপাতাল পরে থানা পর্যন্ত যেতে। ঘটনাটি ঘটে গত ১লা ডিসেম্বর, ২০২০ইং তারিখ। ফরিদের সাথে মেয়েটির প্রায় ১ বছর যাবত পরিচয়। কিন্তু সে গত নভেম্বরের ১৮/২০ তারিখে রহিমা আক্তার সাথীকে গাজীপুরের একটি বাসায় নিয়ে ধর্ষণ করতে সক্ষম হয়েছেন উক্ত ফরিদ। কিন্তু সাথীর বিষয়টি ফরিদের পরিবার কোনভাবে আঁচ করতে পারে এবং বিষয়টি নিয়ে ফরিদের ছেলে, মেয়ে, মেয়ের জামাই, স্ত্রী ও শালী সকলের মাঝেই একটা ক্ষোভ বিরাজ করে। প্রতিদিনের মতই গত ১লা ডিসেম্বর সাথী গার্মেন্টস্ শেষ করে বাসায় ফিরতে গেলে ফরিদের পরিবার মেয়েটিকে ডেকে নিয়ে গিয়ে অমানুষিক নির্যাতন চালায়। এ ব্যপারে রোমানা আক্তার সাথী নিউজ২৪ এর সাংবাদিকদের বলেন আমি আমার নির্যাতনের না সারা বাংলার সব নারীদের উদ্দেশ্যেই বলবো আর কোন বোন যেন আমার মতো এভাবে প্রতারিত হয়ে নির্যাতনের শিকার না হয়। আমি সরকারের কাছে এর উপযুক্ত বিচার চাই। সাথে আইনি প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের মর্জি করছি।

অসহায় গরীব দুস্থদের মাঝে শীত বস্র বিতরণ করেন : আবদুস সালাম

0
অসহায় গরীব দুস্থদের মাঝে শীত বস্র বিতরণ করেন : আবদুস সালাম
মোঃ জাকির হোসেন, স্পেশাল করেসপোন্ডেন্টঃ
 আজ ৩০ নভেম্বর সোমবার সকাল ১০ টায় মোহাম্মদপুর থানায় বেরিবাদ এলাকায় ঢাকা ১৩ আসনের গত সংসদ নির্বাচনে বিএনপি দলীয় প্রার্থী,সাবেক ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের ডেপুটি মেয়র,অবিভক্ত ঢাকা মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও বিএনপি চেয়ারপার্সন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা মন্ডলির অন্যতম সদস্য জনাব আবদুস সালাম গরীব অসহায় দূস্থ মানুষের মাঝে শীত বস্র বিতরন করেন।জনাব আবদুস সালাম বলেন,বিএনপি  জনগনের জন্য রাজনীতি করে বিদায় দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ও বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জনাব তারেক রহমানের নির্দেশনায় আমি আপনাদের মাঝে শীতকে নিবারনের জন্য শীত বস্র বিতরণ করছি,এবং ভবিষ্যতে যেকোন দূর্যোগ,দূঃসময়ে আমি আপনাদের পাশে ছিলাম,আছি,থাকব।এই শীতে মানুষের কষ্ট লাগবের জন্য আমাদের দল ব্যাপক আকারে আপনাদের পাশে থেকে সহযোগীতা করবেন।এ সময় উপস্থিত ছিলেন মোহাম্মদপুর থানা বিএনপির সভাপতি ওসমান গনী শাহজাহান,  সিনিয়র সহসভাপতি হাজী মোহাম্মদ ইউসুফ, মোহাম্মদপুর থানা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এনায়েতুল হাফিজ,জামাল হোসেন টুয়েল সহ মোহাম্মদপুর থানা বিএনপি ও সকল অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

একটি শোক সংবাদ

2
শোক সংবাদ

স্টাফ রিপোর্টার: মোঃ ফরহাদ হোসেন রানা
আজ দিবাগত ২৩/১১/২০২০ইং রোজ সোমবার সকাল ৮.৪৫ ঘটিকায় ইসহাক মিয়া (সভাপতি বাংলাদেশ আওয়ামি সেচ্ছা সেবক)  উনার মা আছিয়া বেগম   হাসপাতালে প্রায় ১০ দিন চিকিৎসারত অবস্থায় মৃত্যু বরণ করেন (ইন্নানিল্লাহি….. রাজিউন)। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৯৬ বছর। তিনি দির্ঘ দিন বার্ধক্য জনিত কারণে ভুগছিলেন। আজ  বাদ জোহর উত্তর ইব্রাহীমপুর বউ বাজার সংলগ্ন কলোনী কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে

উনার জানাজা নামাজ অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত জানাজায় উপস্থিত ছিলেন জনাব হাবিব হাসান মাননীয় সংসদ সদস্য ঢাকা-১৮, এসএম মান্নান কচি, গাজী মেজবাউল হোসেন মাচ্ছু, মোবাশ্শের চৌধুরী, আনিসুর রহমান নাঈম, আব্দুল ওলিদ সুজনসহ সমাজের সর্বস্তরের জনগন, জানাজা শেষে মরহুমাকে উত্তর ইব্রাহীমপুর মুন্সী বারি সড়কে তাদের পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়।

নিজের নামের জন্য নয় গরীবের জন্য ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করেছে একটি সংস্থা

2
নিজের নামের জন্য নয় গরীবের জন্য ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করেছে একটি সংস্থা

স্টাফ রিপোর্টার : মোঃ ফরহাদ হোসেন রানা
আজ ২৩/১১/২০২০ইং  দিবাগত সোমবার সকাল ৯.০০ ঘটিকার সময় মিরপুর- ২নং সেকশনে ন্যাশনাল বাংলা উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের মাঠে গরীব দুস্থ্যদের মাঝে ত্রান সামগ্রী, মাস্ক, ফেস ফিল্ট বিতরণ করা হয়। প্রায় ২ শতাধিক নারী, পুরুষ ও বয়বৃদ্ধদের মাঝে এই সমস্ত ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করা হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন জনাব আব্দুল ওলিদ সুজন, মোঃ আল আমিন, মাহবুবল আলম, মোঃ ফরহাদ হোসেন (রানা) দাতা সংস্থার লোকজন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক থাকা তাদের পরিচয় প্রদান করা মিডিয়ার জন্য সম্ভব হয়ে উঠেনি। সংস্থাটির কর্মকর্তা বলেন আমরা গরীবের জন্য ত্রানের ব্যবস্থা করেছি। নিজেদের নামের জন্য নয় ।

কেপিএল এর চার টিমের প্লেয়ার বিটস-২০২০

0
কেপিএল এর ৪ টিমের প্লেয়াআর বিটস-২০২০

ফরহাদ হোসেন রানা, বাংলাদেশ নিউজ২৪

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের জন্ম শত বার্ষিকী উপলক্ষে কেপিএল এর চার টিম তথা ঢাকা এলিভেন, রংপুর রেনেগেট্স, বাইকারস্ স্কয়ার ও থান্ডার বয়েজ এর খেলোয়ারের মূল্য নির্ধারণ করা হয় একটি আসরের মাধ্যমে। যেখানে রেজিষ্ট্রেশন করেছেন ৭০জন খেলোয়ার। প্রজেক্টরের মাধ্যমে প্রত্যেক খেলোয়ারের ছবি তুলে ধরলেই হাকানো হচ্ছে খেলোয়ারের মূল্য। আনন্দ আর উল্লাসে ভরপুর আসরের উপস্থিত নেতৃবৃন্দ ও সদস্যগণদের। ঢাকার মিরপুর-২নং ষ্টেডিয়ামের ভিআইপি গেইটের বিপরীত পার্শ্বে ৬নং রোডে এই আয়োজন করা হয়। প্রতিটি টিমের বাজেট নির্ধারণ করা হয় ১০ লক্ষ টাকা করে। এই কেপিএল খেলাটি অনু্ষ্ঠিত হবে আগামী ২৬ ডিসেম্বর। খেলার মাঠ হিসাবে প্রতিবারের মতই এবারও থাকছে মিরপুর ন্যাশনাল বাংলা উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠ। বাধ্যগত করা হয়েছে ৪০ উর্ধ্ব অন্তত ২জন খেলোয়ার। প্রতি বছরের শীতকে স্বাগত জানিয়ে এই আয়োজনটি করা হয় খুবই গুরুত্বের সাথে। তবে এবার একটু আগেই আয়োজিত হবে বলে জানিয়েছেন প্রধান আয়োজক মোঃ সুজন।

 

এটা পরিষ্কার চুরির ভোট ছিল

0
এটা পরিষ্কার চুরির ভোট ছিল

নির্বাচনের দিন থেকে ভোট কারচুপির অভিযোগ করে আসছেন ট্রাম্প। যদিও এখন পর্যন্ত এমন অভিযোগের পক্ষে কোনো প্রমাণ দেখাতে পারেননি প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। কিন্তু নির্বাচনের ফলের বিপক্ষে সোমবার আইনি লড়াইয়ে নামবেন বলেও তিনি জানান।

রোববার রাতে দেয়া এক টুইট পোস্টে ট্রাম্প বলেন, ‘আমরা মনে করি এ লোকগুলো চোর। যন্ত্রগুলো সব দুর্নীতিগ্রস্ত। এটা চুরির নির্বাচন। ব্রিটেনের সেরা ভোট বিশেষজ্ঞ বলেছেন যে, এটা পরিষ্কার চুরির ভোট ছিল। এ কারণে কিছু রাজ্যে বারাক ওবামাকেও টপকে গেছেন বাইডেন।’ টুইটে তার আরও দাবি, ‘পার্থক্যটা সেখানেই গড়ে দিয়েছে যে, ওরা যা চুরি করতে চেয়েছিলেন সেটা করেছে।’ তবে ট্রাম্পের এমন সব অভিযোগ একেবারেই পাত্তা দিতে নারাজ বাইডেনের ডেমোক্র্যাট শিবির।

ভোট গণনায় অনেকটা পিছিয়ে পড়ার পর থেকে ট্রাম্প নানাভাবে হুঙ্কার ছেড়েছেন। ভোট চুরির অভিযোগের পাশাপাশি হঠাৎ গণনা বন্ধ করার মতোও আর্জি নিয়ে আদালতের দ্বারস্থ হয়েছে তার শিবির। অবশ্য সেই অভিযোগের আর্জি মেনে নেননি আদালত। জর্জিয়ায় যখন হাড্ডাহাড্ডি লড়াই চলছিল তখনই জয়ের আশায় পুনর্গণনা করা হয়। তাতেও জিততে পারেননি ট্রাম্প। বারবার জেতার আশায় একাধিক পদক্ষেপ নিলেও তার কথা কেউ শোনেননি। অগত্যা, মেজাজ হারান ট্রাম্প।

ভোট গণনার পর বাইডেনের ঝুলিতে একের পর এক অঙ্গরাজ্য যোগ হতে থাকার পর থেকে ‘ভোটচুরি’র অভিযোগ তুলে সরব হন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। এমনকি আদালতে পর্যন্ত টেনে নিয়ে যান পুরো বিষয়টিকে। আদালত হতাশ করলেও এখনও নিজের অবস্থানে অনড় তিনি। কোনোভাবেই প্রেসিডেন্টের ক্ষমতা ছাড়তে তিনি নারাজ। আর তাই ফের ‘ভোট চুরি’র অভিযোগ তুলেছেন ডেমোক্র্যাটদের বিরুদ্ধে।

এদিকে, বাইডেনের কাছে পরাজয়ের পর প্রথমবারের মতো একটি রেডিও শোতে কথা বলতে যাচ্ছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। টুইট বার্তায় এমন খবর তিনি নিজেই জানান। স্থানীয় সময় সোমবার রাত ৮টায় মার্ক লেভিনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে অংশ নিয়ে নির্বাচনে ডাকযোগে ভোট কারচুপির অভিযোগ নিয়ে কথা বলবেন ট্রাম্প।

জো বাইডেনের প্রচার উপদেষ্টা সাইমন স্যান্ডার্স জানান, স্থানীয় সময় রোববার পর্যন্ত ট্রাম্প শিবির বা হোয়াইট হাউস থেকে জো বাইডেনের সঙ্গে কোনো যোগাযোগ করা হয়নি। হোয়াইট হাউস থেকে বিজয়ীকে অভিনন্দন জানানোর প্রথা এবার আদৌ বজায় থাকবে কি না, নিশ্চিত করে সেটা কেউ বলতে পারছে না। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প পরাজয় মেনে নিয়ে বাইডেনকে অভিনন্দন জানাবেন- এমন আশা করা যাচ্ছে না। বরং তিনি আইনি পদক্ষেপ নিতে যাচ্ছেন; সুপ্রিম কোর্টে যাবেন বলেও জানিয়েছেন।

মনে হচ্ছে, তিনি পানি আরও কিছুটা ঘোলাটে করার চেষ্টা করবেন। ট্রাম্পের হাতে আছে দুই মাসের আর কিছু বেশি সময়। এর মধ্যে তিনি প্রশাসনের কয়েকজনকে বরখাস্ত করতে পারেন। তার সমর্থকদের খুশি করতে কিছু নির্বাহী আদেশও জারি করতে পারেন। সাউথ ক্যারোলাইনা থেকে নির্বাচিত কংগ্রেসম্যান জেমস ক্লাইবার্ন বলেন, একজন ব্যক্তির চেয়ে দেশ অনেক বড়। গণতন্ত্র এখন হুমকির সম্মুখীন বলে তিনি রিপাবলিকান পার্টিকে এগিয়ে আসার জন্য আহ্বান জানান।

Collection Prothom-alo